manna_nagorik_okko

আমি নিরীহ মানুষ, সরকার শান্ত থাকতে দিচ্ছে না : মান্না

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘আমি নিজে শান্ত-নিরীহ মানুষ। কিন্তু এই সরকারের জন্য শান্ত থাকার কোনো উপায় নেই।’

তিনি বলেন, ‘ভোটের দিকে তাকিয়ে থেকে লাভ নেই। সারা পৃথিবীতে আন্দোলনের মাধ্যমে এ ধরনের স্বৈরশাসকদের পতন হয়েছে। বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে আমাদেরও আন্দোলন করতে হবে।’

বুধবার (৩ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘জাতীয় সংহতি মঞ্চ’ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘প্রথমেই আমি জাতীয় সংহতি মঞ্চকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এখনই সংহতি দরকার। বাংলাদেশের অবিসংবাদিত নেতা মওলানা ভাসানীর মেয়ে টাঙ্গাইলে অনশন করেছেন। তিনি নিজেই ভোট দিতে পারেননি। দেশে আজ কোনো ভোটাধিকার নেই।’

‘প্রধানমন্ত্রী রাজনীতির পরিবর্তে অভিনয় করলে আরও ভালো করতে পারতেন’ মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতা বলেন, ‘দেশের পত্রিকা এবং টেলিভিশনের গলায় পাড়া দিয়ে তাদের কথা বলতে দেয়া হচ্ছে না। সরকারের একজন এমপি মানি লন্ডারিং করেছে, মানবপাচার করে বিদেশের মাটিতে ধরা পড়েছে। কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে? প্রধানমন্ত্রীর অভিনয় দেখে মাঝে মাঝে মনে হয়, তিনি কেনো রাজনীতি করেন? অভিনয় করলে আরও ভালো করতেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন আমাদের একটাই দাবি, হাসিনা সরকারের পতন এবং নতুন করে নির্বাচন দিতে হবে। এই লক্ষ্যে আপনারা যে যেখান থেকে দাঁড়াবেন, আপনাদের পাশে আমরা থাকব।

মান্না বলেন, ‘এ সরকারের মৃত্যুঘণ্টা বেজে গেছে। এরা যত চুরি করেছে, ডাকাতি করেছে, সেগুলো ফেরত দিতে হবে। যত অত্যাচার করেছে, সবকিছুর বিচার হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই জালেম সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়া ঈমানী দায়িত্বের মধ্যে পড়েছে। গুন্ডা, হুন্ডা দিয়ে ভোট করার যুগ এখন আর নেই। এখন পুলিশ-প্রশাসন নিজেরাই গুন্ডা।’

মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, বিকল্পধারা বাংলাদেশের একাংশের চেয়ারম্যান প্রফেসর নুরুল আমিন ব্যাপারী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আবদুল্লাহ, খেলাফতে ইসলামী বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা ফজলুল রহমান, জাতীয় সংহতি মঞ্চের সদস্য সচিব অধ্যাপক মো. সিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।

Check Also

ঢাকায় আল-জাজিরার ৫ গুপ্তচর?

গণমাধ্যমে গুঞ্জন চলছে। আল-জাজিরার পক্ষে তথ্য সংগ্রহের কাজ করছেন ঢাকায় প্রতিষ্ঠিত ৪ সংবাদকর্মী। এদের মধ্যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin