জিয়াউর রহমান আমাকে মন্ত্রী বানাতে চেয়েছিলেন: ডা. জাফরুল্লাহ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পরবর্তী সময়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান আমাকে মন্ত্রী বানাতে চেয়েছিলেন। আমি সেদিন রাজি হইনি। উনাকে বলেছিলাম, স্বাধীনতা আন্দোলনের বিরোধী শাহ আজিজুর রহমান, শফিউল আজমের মতো লোক যদি রাখেন আপনারা। তাদের পাশে আমি থাকতে পারি না। এবং আমি সেদিন থাকিও নাই।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু মহানুভবতার কারণে স্বাধীনতা পর এদেরকে হত্যা করার নির্দেশ তিনি দেননি। এদের থাকা-খাওয়ার পয়সা দিয়েও সাহায্য করেছেন। ফজলুল কাদের চৌধুরী স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিলেন। উনাকে দেখতে বঙ্গবন্ধু জেলখানা পর্যন্ত গিয়েছিলেন।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আজকে প্রকৃত রাজনীতিবিদরা ধাপে ধাপে উপরে উঠতে পারছে না। আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রীর সৎ-ইচ্ছা রয়েছে কিন্তু কতগুলো বিষয়ে তিনি ভুল করছেন।

তিনি বলেন, দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে প্রধানমন্ত্রী উচিৎ হবে বিরোধী দলকে কথা বলতে দেওয়া। যারা উনাকে পছন্দ করেন না তাদেরকেও নিয়ে বসা। এজন্য চা খরচের বাহিরে তেমন খরচ হবে না। এটা সরকারে নিজের প্রয়োজনেই করা উচিত।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের এ প্রতিষ্ঠাতা বলেন, আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর কথা শুনে প্রধানমন্ত্রী যখন দেখা করতে গিয়েছিলেন কিন্তু বেগম জিয়ার পরামর্শ দাতার উনাকে ভুল পরামর্শ দিয়েছেন।

এক সময় যে ভুলগুলো খালেদা জিয়া করেছেন, সে ভুলগুলো এখন প্রধানমন্ত্রী করছেন। আমি উনাকে একটা খোলা চিঠিতে লিখেছিলাম আপনি ঈদের সময় বেগম জিয়াকে দেখতে যান, তিনি খুব অসুস্থ। উনাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানান।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, সেদিন এ ঘটনার পরে বেগম জিয়ার সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ হয়। আমি উনাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী দেখা করতে আসলো, আপনি দেখা করলেন না কেনো? তিনি জবাবে বললেন, উনি পত্রিকার হেড লাইনের জন্য এটা করেছেন।

আমি বললাম, উনি রাজনীতিবিদ হিসেবে সুবিধা নিতে চাইতেই পারেন। আমি তো মনে করি সেদিন পত্রিকার হেড লাইন আপনি হতে পারতেন, সেদিন নিশ্চয়ই প্রধানমন্ত্রী হয়তো বলতেন, আমি কি করতে পারি আপনার জন্য। তখন আপনি যদি বলতেন আমার তারেককে এক সপ্তাহের জন্য এনে দেন…..

সূত্র: রোববার রাতে বেসরকারী টেলিভিশন নিউজ ২৪ এর টকশো’তে যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

Check Also

bnp-flag

নতুন সংকটে বিএনপি

দীর্ঘদিন ক্ষমতায় বাইরে থাকার ফলে দলীয় কোন্দল ও উপনির্বাচন-স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভরাড়ুবি এবং সাংগঠনিক দুর্বলতাসহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin