সরকার পতনের আরেকটি নীলনক্সা?

ধর্ষণ নিয়ে সারাদেশে উত্তেজনা ছড়িয়ে সরকার পতনের একটি নীলনক্সা ফাঁস হয়ে গেছে। অপরাধীদের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থান, প্রধানমন্ত্রীর সার্বক্ষনিক নজরদারির কারণে সরকার পতনের আরেকটি ষড়যন্ত্র হালে পানি পেলো না।

একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, সারাদেশে ধর্ষণের ঘটনা পরিকল্পিত। একটি মহল পরিকল্পিত ভাবে সারাদেশে এই নারকীয় ঘটনা ঘটানোর নীলনক্সা তৈরী করেছিল। একই সাথে এই ঘটনাকে গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রকাশিত করাও ছিলো নীলনক্সার অন্যতম অংশ।

মূলধারার কিছু গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ঘটনা গুলোকে এমন ভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে যাতে জনমনে সরকারের ব্যাপারে অসন্তোষ তৈরী হয়। দেশের বাইরে বিএনপি-জামাতের অর্থে চলা কিছু পতিত গণমাধ্যমকর্মীকে এই কাজে ব্যবহার করা হয়। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই প্রসঙ্গটি নিয়ে উত্তেজনা ছড়ায়।

লক্ষণীয় যে, বাংলাদেশে ধর্ষণ বিরোধি আন্দোলন শুরুর ঠিক আগে আগে, ডাকসুর সাবেক ভিপি নূরকে নিয়ে একটা নাটক মঞ্চস্থ হয়। তার বিরোধি ধর্ষণের সহযোগিতার একটি মামলা করা হয়। এই মামলার মাধ্যমে জামাত-শিবির নিয়ন্ত্রিত ছাত্র অধিকার ফোরামকে সক্রিয় করা হয়।

করোনার সময় দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। বন্ধ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ও। এর মধ্যে হঠাৎ করেই নূর গংদের বিরুদ্ধে মামলা কেন? এরফলে, সরকার বিরোধি, জামাত-শিবির পন্থী নূর গ্রুপকে একতাবদ্ধ হওয়ার সুযোগ করে দেয়া হলো।

শুধু তাই নয়, নূরকে হিরো বানাতে গ্রেপ্তার নাটক সাজনো হলো। এই ঘটনায় সারাদেশ থেকে নূরপন্থী শিবির গ্রুপ ঢাকায় জড়ো হলো। এর পরপরই ঘটলো ধর্ষণ বিস্ফোরন। নোয়াখালী বেগমগঞ্জের ঘটনাটি পুরনো। যখন নিশ্চিত হওয়া গেল যে, নূরপন্থীরা ঢাকা এসেছে, ঠিক তখনই নোয়াখালীর নির্যাতিত নারীর ভিডিও ক্লিপটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো হলো।

লক্ষনীয় যে, নুরকে নিয়ে যখন সাজানো নাটকের মঞ্চায়ন চলছে, তখন বিএনপি বৈঠক করে নতুন করে আন্দোলন শুরুর ঘোষণা দিলো। তাহলে বিএনপি নেতারা কি জানতেন এরকম কিছু একটা ঘটতে যাচ্ছে? না হলে এই করোনার মধ্যে হঠাৎ বিএনপি নেতাদের আন্দোলনের খায়েশ জাগলো কেন?

আপাত: পরিপাটি, সাজানো গোছানো এই পরিকল্পনায় একটি বিষয় বিবেচনা করা হয়নি। সেটি হলো শেখ হাসিনা। এসব ষড়যন্ত্রকে জয় করেই তিনি যে রাষ্ট্রনায়ক থেকে বিশ্ব নেতা হয়েছেন এটা হিসেব করেনি পরিকল্পনাকারীরা।

শেখ হাসিনা কঠোর অবস্থানে গেলেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়ে দিলেন, ধর্ষকদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স। শেখ হাসিনা কোন সুযোগ দিলেন না। যেমন তিনি সুযোগ দেননি মেজর (অব:) সিনহা হত্যার পর, ইউএনও ওয়াহিদা আক্রান্ত হবার পর। ফলে ভেস্তে গেলো সরকার পতনের আরেকটি ষড়যন্ত্র।

বাংলা ইনসাইডার

Check Also

২০২৩ সালে ক্ষমতায় যাওয়ার রোড ম্যাপ করছে বিএনপি?

‘আগামী দিনের বিএনপির নেতৃবৃন্দ’ এই শিরোনামে লন্ডনে বিএনপির পলাতক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া সারাদেশে নেতৃবৃন্দের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin