তথ্য গোপন আর ভুল পদক্ষেপে দেশের কঠিন পরিস্থিতি : মোশাররফ

একদিকে তথ্য গোপন আর অন্যদিকে করোনা মোকাবিলায় ভুল পদক্ষেপের কারণে দেশ কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, সরকার যে তথ্য দিচ্ছে, তা রোগকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য নয়, রোগীকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য।

১৬ মে শনিবার বিএনপি কমিউনিকেশন সেল থেকে ফেসবুক লাইভে ‘প্রাসঙ্গিক সংলাপ’-এর প্রথম পর্বে তিনি এসব কথা বলেন। এর সঞ্চালনায় ছিলেন বিএনপি কমিউনিকেশন সেলের প্রধান সম্পাদক জহির উদ্দিন।

মোশাররফ বলেন, ‘যা-ই ঘটুক না কেন, তথ্যটা সঠিক প্রকাশ করতে হবে। তথ্য সঠিকভাবে প্রকাশ করা না গেলে আমাদের স্বাস্থ্যকর্মী, চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান সঠিকভাবে প্রস্তুতি নিতে পারে না। প্রথম থেকে সঠিকভাবে তথ্য প্রকাশ করেনি।’

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস সারা বিশ্বকে কাবু করে ফেলেছে। ডিসেম্বরের শেষে চীনে এ ভাইরাসের কথা প্রথম জানা যায়। আর বাংলাদেশে মার্চে এই ভাইরাসের সংক্রমণের ঘোষণা দেওয়া হয়। মাঝে এত সময় পাওয়ার পরও প্রস্তুতির ব্যাপারে বড় ঘাটতি হয়েছে। এ সময়ে সারা বিশ্ব থেকে যে প্রবাসীরা এসেছেন, বিমানবন্দরে তাদের কার্যকর কোনো পরীক্ষা ছাড়াই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ওই সময়ে সতর্কতা অবলম্বন করা হলে এ অবস্থা হতো না বলেও জানান।

সরকারের ব্যবস্থাপনার গাফিলতি ছিল উল্লেখ করে মোশাররফ বলেন, ছুটি ঘোষণার পরেও মানুষ নিজ নিজ এলাকায় ফিরেছে। এতে ভাইরাস সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এই সময়টায় আরও হুঁশিয়ার হওয়া দরকার ছিল। গার্মেন্টস খুলে দেওয়ার সমালোচনাও করেন তিনি। এ ছাড়া বলেন, বিভিন্ন দেশে লকডাউন করা হয়েছে। কিন্তু সাধারণ ছুটি আর লকডাউনের মধ্যে পার্থক্য আছে। সাধারণ ছুটি দেওয়াতেই এই অবস্থা হয়েছে। শর্ত সাপেক্ষে দোকানপাট, অফিস খুলে দেওয়ার ঘোষণায় কিছুই মানা হচ্ছে না।

সাবেক এই স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভাইরাস শনাক্তকরণের পরীক্ষায় সারা পৃথিবী থেকে পিছিয়ে আছি। প্রথম দিকে খুবই কম পরীক্ষা হয়েছে। মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন আছে। উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার খবর আসছে অনেক। উপসর্গ নিয়ে যারা মারা গেছেন, তারা কয়জন আক্রান্ত ছিলেন, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। পরীক্ষায় আমরা অবহেলা করছি। পর্যাপ্ত কিট আমদানি হয়নি।’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিট নিয়েও সরকার গড়িমসি করছে বলে অভিযোগ করেন মোশাররফ হোসেন। এ ছাড়া মাস্ক, পিপিই নিম্নমানের দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ তার। বিএনপি থেকে সরকারকে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বেশ কিছু প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল কিন্তু সরকার তা আমলে নেয়নি বলেও অভিযোগ তার।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই নেতা বলেন, ভর্তি রোগী পালিয়ে যাচ্ছে কারণ হাসপাতালগুলো প্রস্তুত করা হয়নি। প্রয়োজনের তুলনায় নগণ্য ব্যবস্থাপনা।

যারা ঈদ শপিং করছেন, তাদের উদ্দেশে মোশাররফ হোসেন বলেন, বেঁচে থাকলে জীবিকা হবে। তাই জীবন রক্ষা করতে হবে। একটি ঈদে কিছু না কিনলে ক্ষতি হবে না। জীবনের মূল্য অনেক বেশি। জীবন রক্ষার জন্য নিজেকে সাবধান হতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.