risvi

দেশে খাবারের হাহাকার চলছে: রিজভী

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকার আগাম প্রস্তুতি না নেয়ায় দেশে এ রোগে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, আজকে করোনার কারণে দেশে খাবারের জন্য হাহাকার চলছে। কর্মহীন মানুষ খাবার খুঁজছে। তারা খাবারের জন্য ছোটাছুটি করছেন। দেশে দুর্ভিক্ষের অবস্থা বিরাজ করছে। এই দুঃসময়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা পকেটের টাকায় ত্রাণ দিচ্ছে আর সরকারি দলের মেম্বার-চেয়ারম্যান ত্রাণের চাল-ডাল-তেল চুরি করছে।

শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) সকালে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে দুস্থ ও গরিবদের মাঝে বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মাহবুবুল ইসলামের উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণের আয়োজন করা হয়।

রুহুল কবির রিজভী সরকারের সমালোচনা করে বলেন, আজকে বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বে করোনাভাইরাস বিপর্যয় নিয়ে এসেছে। মানুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে করোনা মোকাবিলায় যে ধরনের আগাম প্রস্তুতি নেয়া দরকার ছিল সেটা বর্তমান সরকার নেয়নি। অন্যদিকে ভিয়েতনাম, ভুটানসহ অনেক দেশ আছে যারা যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল বলে সেসব দেশে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা কম। ফলে বাংলাদেশে প্রস্তুতি না থাকায় করোনা আক্রান্ত রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশের কর্মহীন মানুষ খাবার পাচ্ছে না। নিম্ন আয়ের মানুষ যারা দিন আনে দিন খায় তারা খাবার সংগ্রহ করতে পারছে না। তারা ক্ষুধার জ্বালায় হাহাকার করছে। ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে পতিত হয়েছে। এই পরিস্থিতির মধ্যে সাধারণ জনগণ সরকারি ত্রাণ পাচ্ছে না। বরং ত্রাণের চাল তেল ডাল পাওয়া যাচ্ছে আওয়ামী লীগের মেম্বার চেয়ারম্যানের বাড়িতে। হাজার হাজার বস্তা চাল পাওয়া যাচ্ছে তাদের বাসায়। মহামারির মধ্যে শুরু হয়েছে চাল-ডাল চোরদের উৎসব। এটাই কি গরিব মানুষকে সহায়তা করা, এটাই কি দুর্যোগ মোকাবিলা করা?

রিজভী বলেন, মহামারির মধ্যেও বিএনপি, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, যুবদল, মহিলা দল, সব অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা গরিব মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু সরকারের তা সহ্য হয় না। বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করা হচ্ছে, মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে। এদিকে সরকারি দলের লোকেরা ত্রাণ চুরি করছে। আর বিএনপির লোকেরা পকেটের টাকায় ত্রাণ দিচ্ছে। এজন্য সরকার জুলুমের পথ বেছে নিয়েছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করছে। তারা যতই গ্রেফতার করুক আমরা এই মহামারিতে মানুষের পাশে আছি এবং থাকব। সামনে রমজান মাসেও গরিব মানুষের পাশে দাঁড়ানো অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.