তারেক-মাহির একান্ত ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব

যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির ঐক্যের প্রধান বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে তারেক-মাহির দ্বন্দ্ব। বিএনপি এবং যুক্তফ্রন্টের নেতারা বলছেন, এই দুইজনের দ্বন্দ্বে ভেস্তে যেতে পারে ঐক্য প্রক্রিয়া। মাহি যেমন জামাতের ব্যাপারে অনড় অবস্থান নিয়েছেন, তেমনি তারেক জিয়াও মাহির অবস্থানকে অমার্জনীয় এবং উদ্ধত বলে মনে করছেন। বাহ্যত: দুই জনের বিরোধ এবং মত পার্থক্য নীতিগত মনে হলেও দুই পক্ষের নেতারাই বলছেন দ্বন্দ্ব ব্যক্তিগত। অথচ এরা দু’জন ছিলেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু।

২০০১ সালের নির্বাচনের আগে তারেক-মাহি জুটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। তারেক-মাহিকে নির্বাচনী প্রচারণার দায়িত্ব দেন। মাহি বি চৌধুরীর পরিচালনায় নির্মিত হয় প্রামাণ্য চিত্র ‘সাবাস বাংলাদেশ’। যাতে উপস্থাপনা করেন মাহি বি চৌধুরীর বাবা অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী।

২০০১ সালের অক্টোবরের নির্বাচনে বিএনপি-জামাত জোট দুই-তৃতীয়াংশের বেশি আসন পেয়ে বিজয়ী হয়। অধ্যাপক বি. চৌধুরী হন রাষ্ট্রপতি। উপ-নির্বাচনে মাহি. বি চৌধুরীকে মনোনয়ন দিয়ে এমপি বানায় বিএনপি। মাহির হাতে দেওয়া হয় বিটিভির দায়িত্ব।

কিন্তু তারেক-মাহির বন্ধুত্ব ‘একান্ত ব্যক্তিগত’ বিষয়ে ফাটল ধরে। ব্যক্তিগত বিরোধের জেরেই রাষ্ট্রপতির পদ ছাড়তে হয় মাহির বাবা অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে। বেগম জিয়া যেমন এখন বিএনপির নামমাত্র প্রধান, আসলে বিএনপি চালায় তারেক জিয়া। তেমনি, অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর আমলে বিকল্প ধারার অলংকারিক প্রধান।

দল চালান মাহি. বি চৌধুরী। তাই, বিএনপির অনেকেই যখন অধ্যাপক বি চৌধুরীর সঙ্গে ঐক্যে যেতে আগ্রহী, তখন তারেক জিয়ার তাতে ঘোর আপত্তি। আবার, বিএনপিকে বেকায়দায় ফেলতেই মাহি ঐক্যের দুই দফা শর্ত দিয়েছেন। প্রথম দফা শর্ত হলো বিএনপিকে জামাত ছাড়তে হবে। দ্বিতীয় শর্ত হলো, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে শরিকদের জন্য অর্ধেক আসন (১৫০টি) ছাড়তে হবে।

যুক্তফ্রন্টের নেতারা বলছেন, মাহি এই দুই শর্ত দিয়েছেন তারেকের সঙ্গে ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব ও বিরোধ থেকেই। বিএনপির নেতা নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘২০০১ আমলে বিএনপি-জামাত ঐক্যবদ্ধ ভাবেই নির্বাচন করে। তখন মাহি বি চৌধুরী বিএনপি করতেন। তখন তাঁর জামাতে অরুচি ছিল না, এখন হলো কীভাবে?‘ যুক্তফ্রন্টের একজন নেতা বলেন, আমরা সবাই জানি, কোন রাজনৈতিক দলের শক্তি সামর্থ্য কতটুকু।

তারপরও বিএনপিকে মাত্র দেড়শ আসন দেওয়ার প্রস্তাব অবাস্তব। যখন যুক্তফ্রন্টের বৈঠকে এই প্রস্তাব উত্থাপিত হয়, তখনই আমরা আপত্তি করেছিলাম। কিন্তু অধ্যাপক বি. চৌধুরী তাঁর ছেলেকে সমর্থন করেন। তিনি বলেন, ’নিজেদের ক্ষুদ্র ভাবা উচিত নয়।’ একাধিক সূত্র বলছে, এই দুই প্রস্তাব শুনে তারেক ক্ষুব্ধ হন। তারেক জিয়া যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে সকল যোগাযোগ বন্ধ করতে বলেন।

তারেক জিয়ার ধারণা মাহি বি. চৌধুরী আওয়ামী লীগের পক্ষ নিয়ে কাজ করছে। মাহি এমন একটা প্ল্যাটফর্ম করতে চায়, যারা আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচনে গিয়ে বর্তমান সরকারকে বৈধতা দেবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, এই দুইজনের দ্বন্দ্বে, যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির আনুষ্ঠানিক বৈঠক হচ্ছে না। গত ২৮ আগস্ট ড: কামাল হোসেনের বাসভবনে অনুষ্ঠিত যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরামের বৈঠকেও ৭ দফার ভিত্তিতে বিএনপির সঙ্গে আলোচনার সিদ্ধান্ত হয়েছিল।

কিন্তু বিএনপির অনাগ্রহে সেই আলোচনার দিনক্ষণ ঠিক হয়নি। তবে, দু পক্ষই বলছে, তারেক আর মাহির ‘একান্ত ব্যক্তিগত’ দ্বন্দ্বেই শেষ পর্যন্ত কিছু হবে না। একান্ত ব্যক্তিগত বিরোধ কি? এই প্রশ্নের উত্তরে সবাই মুখ টিপে হাসেন।

বাংলা ইনসাইডার

Check Also

bnp-flag

নতুন সংকটে বিএনপি

দীর্ঘদিন ক্ষমতায় বাইরে থাকার ফলে দলীয় কোন্দল ও উপনির্বাচন-স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভরাড়ুবি এবং সাংগঠনিক দুর্বলতাসহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin