‘নির্বাচন করতে হলে এক নম্বর শর্ত, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে দেশে কোনও নির্বাচন হবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, যে মানুষটি দেশের মানুষের অধিকার ও গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করেছেন তাকে আজ অন্যয়ভাবে একটি নির্জন কারাগারে আটকে রেখেছে। তিনি এতটাই অসুস্থ তার আত্মীয়রা দেখা করতে গেলে তিনি নিচে আসতে পারেন না। অথচ সরকারের মন্ত্রীররা বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করছি। রাজনীতি তো করছে সরকার। কারণ তারা খালেদা জিয়াকে ভয় পায়, সে জন্য তাকে কারাগারে আটকে রেখেছে। যে মামলায় তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই, সে মামলায় তাকে অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে কারাগারে আটকে রাখছে।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন করতে হলে এক নম্বর শর্ত– খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। নির্বাচনের আগে বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গণতন্ত্রের জন্য, মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য এবং সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের জন্য সমস্ত দল ও সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বর্তমান সরকারের দুঃশাসন যেভাবে বুকে চেপে আছে, তার থেকে মুক্তির জন্য জাতীয় ঐক্য প্রয়োজন।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজ আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, সব রাজনৈতিক দল, সংগঠনকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। জনগণের দাবি আদায় করতে হবে। অপশাসনকে পরাজিত করতে হবে। জাতিকে মুক্তি দিতে হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার ৮ বাম দলের সমন্বয়ে গঠিত জোটকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে অন্যান্য সব দলকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।’

ফখরুল আরো বলেন, আগে বিএনপি ও বিরোধী নেতাকর্মীদের গুম করতো। এখন নতুন নাটক শুরু হয়েছে। মাদকের নামে নিরপরাধ মানুষকে বিনা বিচারে পাখির মতো গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে। সরকার আজ দেশে একটা ভয়াবহ ত্রাসের রাজত্ব শুরু করছে। এ দেশে আজ প্রতিটি মানুষ অনিরাপদ, তাদের কখন কোথায় মৃত্যু হবে কেউ জানে না।

কোটা নিয়ে বিএনপির এ নেতা বলেন, যখন আন্দোলন তুঙ্গে তখন প্রধানমন্ত্রী রেগে সংসদে বলেছেন, কোনো কোটা থাকবে না। আর এখন কি করছে, যারা আন্দোলনের সাথে জড়িত তাদের গুম করা হচ্ছে, রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করছে। এখন ছাত্রলীগের ভূমিকা পাকিস্তান আমলে ইয়াহিয়া খানের ছাত্র সংগঠনের মতো। আজ দেশে কেউ নিরাপদ নয়। কেউ স্বাধীনভাবে কথা বলতে পারে না।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমরা অনেকবার সভা করতে চেয়েছি। আমাদের অনুমতি দেওয়া হয়নি। আজকের সভা করতে অনুমতি দিয়েছে, তাও মৌখিকভাবে। আমাদের যদি মঞ্চ করে সভা-সমাবেশ করতে দিত, তাহলে কাল প্রধানমন্ত্রী যে সভা করবেন তার চেয়ে বেশি লোক হতো। এ সরকার আমাদের সভা করতে দেয় না, কারণ তারা বিএনপি ও খালেদা জিয়কে ভয় পায়।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, এ সরকারের জনগণের ওপর আস্থা নাই, তাই আবারও ৫ জানুয়ারি মার্কা একটি প্রহসনের নির্বাচন করতে চায়। আর সেজন্য অন্যায়ভাবে খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখেছে। তাঁকে চিকিৎসাসেবা পর্যন্ত দেওয়া হচ্ছে না। তার একটি কারণ, তারা বিএনপি ও খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে ভোটারবিহীন নির্বাচন করে ক্ষমতা দখল করতে চায়।

বিএনপির এ নেতা বলেন, এ সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে দেশের তিনটি প্রধান স্তম্ভ নির্বাহী বিভাগ, বিচার বিভাগ ও সংসদকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তারা দেশের প্রধান বিচারপতিকে জোর করে দেশ থেকে বের করে দিয়েছে।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, দেশের জনগণ এ সরকারকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। যতই ষড়যন্ত্র করা হোক না কেন খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। এ ছাড়া কোনো নির্বাচন হবে না। খালেদা জিয়ার মুক্ত না হলে এ দেশে কোনো অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে না। খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে বাদ দিয়ে নির্বাচন করতে চাইলে এবার আর জনগণ বসে থাকবে না। আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের নেত্রীকে মুক্ত করে দাবি আদায় করবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, আগামী তিন সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে জনগণ কোনো ভোট কারচুপির নির্বাচন হতে দেবে না। আর আগামী নির্বাচন শেখ হাসিনার অধীনে হবে না। কারণ এরই মাঝে স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে জনগণ দেখেছে শেখ হাসিনার অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হয় না। তাই আগামী নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে, বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনা মোতায়েন করতে হবে, নিরপেক্ষ সরকারের ব্যবস্থা করতে হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, স্লোগান দিয়ে কাজ হবে না। কাজ করতে হবে, রাজপথে আন্দোলন করতে হবে। সবাইকে মাঠের আন্দোলনের জন্য তৈরি থাকতে হবে।

মওদুদ বলেন, আজকে একটি বিনা ভোটের সরকার সংবিধান লঙ্ঘন করে বন্দুকের জোরে ক্ষমতা দখল করে দেশ চালাচ্ছে। তাই দেশের জনগণের জন্য এ সরকারকে অপসারণ করতে হবে। জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আর এসব করতে হলে আমাদের যা করতে হবে তা হচ্ছে সবার আগে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। আইনি প্রক্রিয়ায় না হলে রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে তাঁকে মুক্ত করতে হবে।

ব্যারিস্টার মওদুদ আরো বলেন, যদি দেশে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে চান তাহলে সবাইকে সমান সুযোগ দিতে হবে। কারণ এক দলের নেত্রী জেলে থাকবেন, আর একজন সরকারি খরচে সভা-সমাবেশ করে ভোট চাইবেন, তা হবে না।

মওদুদ বলেন, আমাদের সভা করতে মাসের পর মাস অনুমতির জন্য অপেক্ষা করতে হয়। কিন্তু সামনে আমরা আর অনুমতি চাইব না। সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নেব এবং সেটি পুলিশকে জানিয়ে দেব আমরা অমুক দিন অমুক জায়গাতে সভা করব।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির মির্জা আব্বাস বলেন, আমরা খালেদা জিয়াকে নিয়ে নির্বাচন যাবে। কেউ যদি মনে করেন, ফাঁকা মাঠে গোল দেবেন তাহলে ভুল করবেন। আমরা খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই নির্বাচনে যাব। এ ছাড়া কোনো নির্বাচন হবে না।

মির্জা আব্বাস বলেন, এদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থায় কোথায় গিয়ে ঠেকেছে সেটি কারো বুঝতে বাকি নেই। কারণ ঢাকা মহানগরের এক নেতা বরিশালের পুলিশ কমিশনারের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়েছে। তাহলে দেশের অবস্থা কী আপনারা বুঝেন।

সরকারের উদ্দেশে মির্জা আব্বাস বলেন, যারা নির্যাতন করছে তারা কেউ মাফ পায়নি। তাই জনগণকে নির্যাতন করবেন না। আমরা এটা স্পষ্ট করে বলতে চাই, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাব। এর বাইরে কোনো নির্বাচন হবে না। আর ভোটের আগে এ নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই পুনর্গঠন করতে হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় সমাবেশে বলেন, বিএনপি ও খালেদা জিয়াকে বাদ দিয়ে আর কোনো নির্বাচন নয়। এ সরকার এ দেশের বৈধ সরকার নয়। তাই তাদের অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না।

ভারতের উদ্দেশে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বাংলাদেশের একটি দলের সঙ্গে বন্ধুত্ব মানে এ দেশের জনগণের সঙ্গে বন্ধুত্ব নয়। তাই বন্ধুত্ব করতে হলে জনগণের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে হবে। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধ করে দিল্লির গোলামি করতে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়নি। বাংলাদেশের মন্ত্রিসভা হবে এদেশের জনগণের ভোটে নিবাচিত জনপ্রতিনিধি দিয়ে। ভিন দেশের কারো সমর্থন নিয়ে নয়। সাবধান, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাবেন না। এদেশের মানুষ সহ্য করবে না।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আমরা খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, সরকারের পদত্যাগ চাই, নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চাই। এর আগে বাংলাদেশে কোনো নির্বাচন হবে না। নির্বাচনের আগে নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে। সবার অংশগ্রহণে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘জনগণের আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন। আর যেদিন খালেদা জিয়ার মুক্ত হবেন সে দিন দেশের গণতন্ত্র মুক্ত হবে।’

বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, বাংলাদেশের মানুষের ভোটাধিকার, গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। আসুন, আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করব।

মঈন খান বলেন, আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরাব। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি আদায় করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী প্রশ্ন রেখে বলেন, গণতন্ত্রের মা বেগম জিয়া কেন বন্দি করা হয়েছে। আপনারা কী তা জানেন? এসময় জনতা হ্যাঁ সূচক উচ্চারণ করলে তিনি বলেন, শেখ হাসিনা আবারও ভোট ডাকাতি, ব্যাংক ডাকাতি ও রক্তাক্ত বাংলাদেশ করতে চায় কিন্তু এবার সেই সুযোগ তাকে দেয়া হবে না।’

যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, ‘ভোট চোর, অর্থ চোর, ব্যাংক চোর, সব কিছুর চোরের সরকারের অধীনে দেশে আর কোনও নির্বাচন হতে দেয়া হবে না।’

বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমান বলেন, ‘সরকার বেগম খা‌লেদা জিয়াকে কারাগা‌রে রে‌খে খুকলনা ও গা‌জীপুর মার্কা নির্বাচন কর‌তে চায়। কিন্তু সরকারের এই উদ্দেশ্য সফল হবে না। গণত‌ন্ত্রের মা‌কে জে‌লে রে‌খে বাংলা‌দে‌শে কোনও নির্বাচন হ‌বে না।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আমান উল্লাহ আমান বলেন, ‘দেশের গণতন্ত্র ও গণত‌ন্ত্রের মাকে বন্দী ক‌রে‌ছে এই অবৈধ সরকার। মিথ্যা মামলায় তা‌রেক রহমানকে সাজা দি‌য়ে‌ছে এই জালিম সরকার। তারেক রহমানকে দে‌শে ফিরি‌য়ে আন‌তে হ‌বে। তার জন্য আমা‌দের যা করার দরকার কর‌তে হ‌বে।’

‌তি‌নি ব‌লেন, ‘সংস‌দে শেখ হা‌সিনা ব‌লে‌ছি‌লেন দে‌শে কোনও কোটা থাক‌বে না, কোটা সংস্কার করা হ‌বে না সব কোটা বা‌তিল কিন্তু তি‌নি এখন বল‌ছে কোটা থাক‌বে। এক মু‌খে দুই কথা তি‌নি একজন মিথ্যাবা‌দী প্রতারক।’

‌তি‌নি আরও ব‌লেন, ‘হা‌সিনার এ অহংকার বেশি দিন থাক‌বে না। তার পতন হ‌বে এবং বেগম খা‌লেদা জিয়া এই দে‌শের প্রধানমন্ত্রী হ‌বেন।’

বিএন‌পির নেতাকর্মী‌দের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়ে আমান ব‌লেন, ‘আপনারা প্রস্তুত থাকেন। এই সৈরাচারী সরকারের পতন ঘটাতে হ‌বে। সরকারের পতন ঘটাতে আর একটা ধাক্কা দিতে হবে।’

বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায়, সেলিমা রহমান ও ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নুল আবদীন ফারুক, আবুল খায়ের ভুঁইয়া ও আমান উল্লাহ আমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া, বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ ও সহদপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমদ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.