নিখোঁজ ইলিয়াস আলীর বাসায় বিএনপি নেতারা

বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নিখোঁজ ইলিয়াস আলীর বাসা ‘সিলেট হাউসে’ সোমবার রাত ৩টার দিকে ডিবি পুলিশের পরিচয়ে তল্লাশির ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বিএনপি।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার বিকেলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বনানীর ইলিয়াস আলীর বাসায় গিয়ে খোঁজ খবর নেন এবং সান্তনা দেন। ধৈর্য ধারণ করার পরমর্শ দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোযাজ্জেম হোসেন আলাল, সহ গ্রাম সরকার বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আক্তার, নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক হিলালী, সুনামগঞ্জ জেলা কৃষক দলের আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম সাজু, বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান।

শায়রুল কবির খান জাগো নিউজকে বলেন, বিকেলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ফোন করে খোঁজ খবর নেন।

দুপুরে নয়াপল্টনে সংবাদ সম্মেলন করে দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ অভিযোগ করেন, নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর বাসায় ডিবি পরিচয়ে তল্লাশির নামে তাণ্ডব চালানো হয়েছে। সেহরির আগমুহূর্তে ইলিয়াস আলীর বাসার দরজায় জোরে জোরে ধাক্কা দিয়ে তার স্ত্রীকে দরজা খোলার জন্য বলতে থাকেন কিছু লোক।

পরে ডিবি পরিচয় দিয়ে কয়েকজন বাসার ভেতরে ঢুকে তল্লাশির নামে বাসায় তাণ্ডব চালান। এ ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা বিএনপির নেতৃবৃন্দকে ফোনে আকুতি জানান।

রিজভী বলেন, পরে বাসার সামনে গণমাধ্যমের উপস্থিতি দেখে চলে যান তারা। বিরোধী দলের মধ্যে ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরির জন্যই এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

ইলিয়াস আলীর বাসা ঘিরে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী

বিএনপির সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নিখোঁজ এম ইলিয়াস আলীর বনানীর বাসার সামনে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী জানান, সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ বাসায় ঢুকতে চাইছে। তবে বাসার দরজা কেউ খোলেনি। তারা দরজা ভাঙার চেষ্টা করছে।

উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ সাবেক ছাত্র এম. ইলিয়াস আলী (জন্ম-১৯৬১) ছিলেন সিলেট জেলার একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ এবং জাতীয় সংসদের (২০০১-২০০৬) একজন সাবেক সদস্য।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে ২০১০ সালে নির্বাচিত হয়ে তিনি হরতাল (সাধারণ ধর্মঘট) থেকে শুরু করে প্রতিরোধ কর্মসূচী, বিক্ষোভ এবং দলগঠন সহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে সমন্বয় সাধনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।

২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে আড্ডা শেষে বনানীর বাসায় ফেরার পথে মহাখালী সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে গাড়িচালকসহ নিখোঁজ হন তিনি। ঘটনাস্থল থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় তার ব্যবহৃত গাড়িটি পুলিশ উদ্ধার করলেও বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

Check Also

bnp-flag

বিএনপির নেতৃত্বের অন্দরে কী ঘটছে?

মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্ব-সংঘাতে যেন জর্জরিত হয়ে পড়েছে দেশের অন্যতম বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপির নেতৃত্ব। একটি অংশ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin