khaleda_zia

জামিন পেলেন খালেদা জিয়া

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় কারাগারে থাকা বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দিয়েছেন আদালত। সোমবারের (১২ মার্চ) দুপুরে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

একই বেঞ্চে রবিবার মামলাটি জামিন বিষয়ে আদেশের জন্য রাখা ছিল। কিন্তু মামলার নথি না পৌঁছানো ও আদালতের দেয়া ১৫ দিন সময় শেষ না হওয়ায় আদেশের জন্য সময় পিছিয়ে সোমবার দিন ধার্য করেন।

মামলাটি আজ হাইকোর্টের কার্যতালিকার (কজলিস্ট) এক নম্বরে রাখা হয়।

গত ২২ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আপিল গ্রহণ করে হাইকোর্ট। সেই সাথে তার জামিনেরও আবেদন করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এছাড়া ১৫ দিনের মধ্যে বিচারিক আদালতের নথি জমা দিতে নির্দেশ দেয়া হয়।

পরে ২৫শে ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের উপর শুনানি শেষ করে, নথি পাওয়ার পর আদেশ দেয়া হবে বলে অপেক্ষমান রাখে হাইকোর্ট। নথি জমা দেয়ার নির্ধারিত সময় শেষ হয়ে গেছে ৭ই মার্চ।

মামলার অভিযোগে যা আছে: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা ৮০ পয়সা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলাটি করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ পরিচালক হারুন-অর রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলায় আসামি যারা: এ মামলায় আসামি সংখ্যা ছয়জন। ওই মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও আসামি। তিনি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের বড় ছেলে। অন্য আসামিরা হলেন, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ,প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

মামলার এজাহারে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ আসামি ছিলেন সাতজন। তদন্ত করে অভিযোগপত্র দেওয়ার সময় আসামি সাইয়েদ আহমেদ ও গিয়াস উদ্দিন আহমেদকে বাদ দেওয়া হয়। মামলায় নতুন করে আসামি করা হয় সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকীকে।

পলাতক যারা: মামলার শুরু থেকেই পলাতক আছেন মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং মমিনুর রহমান। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান রয়েছেন লন্ডনে। তাঁকে পলাতক দেখানো হয়েছে।

৪৩ দিন হাজির ছিলেন খালেদা জিয়া: মামলায় খালেদা জিয়া আদালতে ৪৩ কার্যদিবস আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য দেন আট কার্যদিবস। মামলাটি ২৬১ কার্যদিবস পরিচালিত হয়। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় এক মাস নয়দিন কারাভোগ করেছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রায়ে সাজা হলে এসব দিন তার সাজা থেকে বাদ যাবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ওয়ান ইলেভেনের সময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আটক হওয়ার পর রমনা থানায় ৩ জুলাই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা দায়ের করা হয়। পরে এ মামলায় তাঁকে আটক দেখানো হয় ১ মাস ৯ দিন অর্থাৎ ২০০৮ সালের ১৭ জুলাই থেকে ২৬ আগস্ট পর্যন্ত খালেদা জিয়া কারাভোগ করেন।

চার বছরে চার বিচারক: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার অভিযোগ আদালত আমলে নেওয়ার পর থেকে রায় প্রদান পর্যন্ত চার বছরে চারজন বিচারক পরিবর্তন হয়েছেন। প্রত্যেক বিচারকের ওপর অনাস্থা দিয়ে বিচারক পরিবর্তনের জন্য আবেদন করে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তবে সর্বশেষ বিচারকের ওপর অনাস্থা দিলেও আবেদন হাইকোর্টে নামঞ্জুর হয়।

এক নজরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা: রমনা থানায় ২০০৮ সালের ৩ জুলাই মামলা দায়ের করা হয়। মামলার বাদী ও তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক হারুন-অর রশিদ। এজাহারে টাকা আত্মসাতের (ঘটনার) সময়কাল হিসেবে ১৩ নভেম্বর ১৯৯৩ হতে ২৮ মার্চ ২০০৭ সালকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। মামলার কার্যদিবস-২৬১ দিন, খালেদা জিয়া হাজিরা দেন ৪৩ দিন, খালেদা জিয়া আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য দেন আটদিন। গত ২৫ জানুয়ারি ২০১৮ রায়ের দিন ধার্য করেন বিশেষ আদালত ৫-এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান রায়ের দিন ধার্য -৮ ফেব্রুয়ারি ।

বিডি২৪লাইভ

ফের সমাবেশের ঘোষণা বিএনপির

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ১২ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পূর্বঘোষিত সমাবেশের অনুমতি না পাওয়ায় সরকারের প্রতি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে একইস্থানে আগামী ১৯ মার্চ ফের সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

সোমবার (১২ মার্চ) নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ ঘোষণা দেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির উদ্যোগে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে জনসভা অনুষ্ঠিত করতে আমরা সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলাম। জনসভা সফল করতে প্রচারপত্র বিলি থেকে শুরু করে ঢাকা মহানগর এবং বৃহত্তর ঢাকা জেলার নেতৃবৃন্দসহ দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকও করা হয়। এ উপলক্ষে দলের পক্ষ থেকে যথাযথ কর্তৃপক্ষ অর্থাৎ গণপূর্ত অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী ও পুলিশ কমিশনার বরাবরে আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সর্বতোভাবে সংঘাত এড়িয়ে গণতন্ত্রে স্বীকৃত বিরোধীদলের অধিকারগুলোকে প্রয়োগ করতে চাই। সভা-সমাবেশ বিরোধী দলের সার্বজনীন অধিকার। এটি কোনও বেআইনি কর্মসূচি নয়। আজকে কোনও কারণ ছাড়াই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে জনসভা করতে দেয়া হলো না। আমরা এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে এ মুহূর্তে কোনও কর্মসূচিতে না গিয়ে আগামী ১৯ মার্চ পুনরায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির উদ্যোগে জনসভা অনুষ্ঠানের ঘোষণা করছি। আমি আশা রাখি যথাযথ কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এর আগে গত ২২ ফেব্রুয়ারি আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জনসভার জন্য সোহরাওয়ার্দী উদ্যান কর্তৃপক্ষসহ পুলিশকে চিঠি দিয়ে অবহিত করি। কিন্তু বইমেলার দোহাই দিয়ে পুলিশ কোথাও জনসভা করার অনুমতি দেয়নি। সেসময় মৌখিকভাবে তারা পরবর্তী মাস অর্থাৎ এই মার্চ মাসে জনসভা অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে কোনও অসুবিধা হবে না বলে জানিয়েছিল।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘কখনও কখনও আমাদেরকে জনসভার অনুমতি দিলেও সেটিকে একেবারে ছোট্ট পরিসরে সম্পন্ন করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। জনসভার আশেপাশে ১৪৪ ধারা জারি করে জনমনে ভয়ের সঞ্চার করা হয়, যাতে বিএনপির জনসভায় লোকসমাগম কম হয়। যেমনটি ঘটেছে খুলনায়। হাদিস পার্কের মাঠে জনসভার অনুমতি না দিয়ে চারিদিকে ১৪৪ ধারা জারি করে দলীয় কার্যালয়ের সামনে ছোট্ট জায়গায় অনুমতি দেয়া হয়। ১৪৪ ধারা জারির মূল উদ্দেশ্য জনসভাস্থলে জনগণ যাতে যোগ দিতে না পারে।’

‘গণবিচ্ছিন্ন সরকার জন-আতঙ্কে ভোগে’ মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জনগণের বিপুল সমাগমের সম্ভাবনা থাকলে সরকার অজানা আশঙ্কায় বিপন্নবোধ করে। এ কারণে বিএনপি’র জনসভাকে বানচাল করতে সরকার ধারাবাহিক বাধা প্রদান অব্যাহত রেখেছে।’

বিএনপির এই শীর্ষনেতা আরও বলেন, ‘গণতন্ত্র মানে বিক্ষোভ-সমালোচনা। গণতন্ত্র মানে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করে ক্ষমতাসীন দলের একতরফা বলে যাওয়া নয়। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পাবলিক প্রপার্টি, এটি কোনও ব্যক্তি, দল বা জোটের চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত করা সম্পত্তি নয়। সেখানে যদি আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টিসহ মহাজোটের অন্যান্য দল সমাবেশের অনুমতি পায়, তাহলে বিএনপিকে জনসভা করতে না দেয়া ক্ষমতাসীনদের হুঙ্কারসর্বস্ব রাজনীতিরই প্রতিফলন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.