dr_kamal

খালেদার ফাইল ড. কামালের টেবিলে

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় দণ্ড পাওয়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলার ফাইল দেখার জন্য নিয়েছেন ড. কামাল হোসেন। অবশ্য, আপিল শুনানিতে খালেদার আইনজীবী হিসেবে তিনি অংশ নেবেন কিনা তা জানা যায়নি।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খালেদার আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুর রেজাক খান, আমিনুল ইসলামসহ কয়েকজন। তারা বিভিন্ন বিষয়ে ড. কামালের সাথে কথা বলেন। খালেদা জিয়ার মামলার একটি ফাইল ড. কামালকে দেয়া হয়। তিনি তা দেখবেন বলে রেখে দিয়েছেন। তবে ড. কামাল হোসেন খালেদা জিয়ার আপিল শুনানিতে অংশ নেবেন কিনা তা জানা যায়নি।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার প্রতি তার সহানুভূতি থাকবে বলে বিএনপির আইনজীবীদের জানিয়েছেন এই প্রবীণ আইনজ্ঞ।

খালেদা জিয়ার মামলায় আইনি পরামর্শ দেবেন ড. কামাল

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের আইনি পরামর্শ দেবেন ড. কামাল হোসেন। মঙ্গলবার বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল দেখা করতে গেলে তিনি এ বিষয়ে আশ্বস্ত করেন। এ মামলায় দণ্ডিত হয়ে খালেদা জিয়া কারাগারে রয়েছেন।

বেলা ১১টার দিকে মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আইনজীবী আবদুর রেজাক খান ও আমিনুল ইসলাম। এ সময় জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সুব্রত চৌধুরীও উপস্থিত ছিলেন। ড. কামাল হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ওনারা আমার কাছে এসেছিলেন। আমি রায়টি পড়ছি। আমি তাদের আশ্বস্ত করেছি, তাদের আইনি পরামর্শ দেব। তাদের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করব।

আইনজীবী আমিনুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ‘আমরা ওনার (ড. কামাল) চেম্বারে গিয়েছিলাম। মামলার বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। মামলার একটি অনুলিপিও তিনি রেখেছেন। এ মামলা নিয়ে খালেদা জিয়ার প্রতি ওনার সহানুভূতি আছে।’

খালেদা জিয়ার পক্ষে মামলায় লড়তে ড. কামাল হোসেন রাজি হয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নে আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘এখানে রাজি-অরাজির বিষয় নয়। মামলার অনুলিপি রেখেছেন ও দেখেছেন।’

গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী বলেন, খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে গিয়েছিলেন। মামলা নিয়ে তারা আলোচনা করেছেন। ড. কামাল হোসেন মামলার নথি দেখেছেন। তবে ফৌজদারি মামলায় না লড়ার কথাও তিনি জানিয়েছেন। তবে খালেদা জিয়ার প্রতি তার সহানুভূতি থাকবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

৮ ফেব্রুয়fরি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫-এর বিচারক ড. আক্তারুজ্জামানের আদালত খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন। রায়ের পর থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে আছেন খালেদা জিয়া। ওই রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়েছে। আপিল গ্রহণ করে হাইকোর্ট তার অর্থদণ্ড স্থগিত করেছেন। নিম্ন আদালতের নথি আসার পর তার জামিন আবেদনের ওপর আদেশের জন্য সময় রেখেছেন হাইকোর্ট।

বিএনপির বিবৃতি : ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আইনজীবী হওয়ার অনুরোধ ফেরালেন ড. কামাল হোসেন’- বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশিত এমন খবরের প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি। দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানান, গণফোরাম সভাপতি ও বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে পরামর্শ করতে গিয়েছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সুতরাং ড. কামাল হোসেন প্রত্যাখ্যান করেছেন এমন সংবাদ সম্পূর্ণভাবে সত্যের অপলাপ।

monitorbd

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.