দেশব্যাপী বিএনপির বিক্ষোভ চলছে, পল্টন ও বায়তুল মোকাররমে কয়েকজন আটক

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা রায়ের প্রতিক্রিয়ায় দেশব্যাপী বিক্ষোভ চলছে। রাজধানীর পল্টন ও বায়তুল মোকাররম এলাকায় বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করার চেষ্টা করলে বেশ কয়েকজন বিএনপি নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

এছাড়াও বাদ জুমা দেশের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষোভ চলছে। এতে বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক ধরপাকড় ও সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে।

মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি বাদ জুমা জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররাম থেকে মিছিলটি বায়তুল মুকাররামের উত্তর গেট থেকে শুরু হয়ে দৈনিক বাংলা ও ফকিরাপুল হয়ে নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দিকে যায়। এ সময় মিছিলের সামনে পেছনে ব্যাপক সংখ্যক আইন শৃঙ্খলা-বাহিনীর সদস্যদের দেখা গেছে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সাজার প্রতিবাদের শুক্রবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি দিয়েছে দলটি।

বৃহস্পতিবার রায়ের পর নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মিথ্যা মামলায় সাজার প্রতিবাদে আমরা শুক্রবার বাদ জুমা বিক্ষোভ এবং শনিবার প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করব।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বলেছেন- গণতন্ত্রের জন্য অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়। সবাইকে ধৈর্য ধরতে হবে। শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ করতে হবে।’

এ সময় মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন এবং নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই এই সাজা দেয়া হয়েছে।’

‘সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে হয়রানি করতে বেগম খালেদা জিয়াকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে’ বলে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মন্তব্য করেন।

এরআগে বৃহস্পতিবার দুপুরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৫ বছর এবং তারেক রহমানসহ বাকি পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেয় আদালত।

পুরনো ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করেন।

বহুল আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ৫ বছর এবং তারেক রহমানসহ বাকি আসামিদের ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়া ছাড়া বাকি আসামিদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এই রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

দুপুর ২টা ১৪ মিনিটের দিকে আদালত কক্ষে প্রবেশ করেন বিচারক বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। দুপুর ২টা ১৬ মিনিটের দিকে ৬৩২ পৃষ্ঠার রায় পড়া শুরু করেন তিনি। এর আগে দুপুর ১টা ৪০ মিনিটের দিকে বেগম খালেদা জিয়া আদালত চত্বরে পৌঁছান।

এর আগে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা ৪৫ মিনিটে তিনি গুলশানের নিজ বাসভবন ‘ফিরোজা’ থেকে আদালতের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। এরই মধ্যে রায়কে ঘিরে দেশজুড়ে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। আদালতে যাওয়ার পথে রাজধানীর কাকরাইল মোড়ে পুলিশের সঙ্গে তার দলের কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ ১০-১২ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এরপর কাকরাইল মোড়ে পুলিশ বক্সে ভাঙচুর করে বিএনপি কর্মীরা। সেখান থেকে আটক করা হয়েছে অনেককে।

এর আগে খালেদা জিয়ার গাড়িবহর কড়া নিরাপত্তার মধ্যে মগবাজার এলাকায় এলে শত শত নেতাকর্মী সেখানে যুক্ত হন। এ সময় রাস্তার পাশেও অনেকে দাঁড়িয়ে ছিলেন। নেতাকর্মীরা মোটর সাইকেলের বহর নিয়ে সেখানে যুক্ত হন। তারা খালেদা জিয়ার নামে স্লোগান দিয়ে এগোতে থাকেন।

এই মামলার প্রধান আসামি বিএনপির চেয়ারপারসন এবং তিনতিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। ফলে দেশবাসীর আগ্রহ অন্যরকম। রায়ের তারিখ ঘোষণার পর থেকেই টানটান উত্তেজনা জনমনে ছড়িয়ে পড়ে। রায়কে ঘিরে আওয়ামী লীগ-বিএনপি মুখোমুখি অবস্থানে দাঁড়িয়েছে। রাজনীতির মাঠে রায় নিয়ে আলোচনায় গুরুত্ব পাচ্ছে জাতীয় নির্বাচনও।

দেশের মানুষের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালত। এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি ওই মামলার শুনানি শেষে রায়ের দিন নির্ধারণ করেন বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান।

বিএনপির অভিযোগ এই রায়কে কেন্দ্র করে সারা দেশে বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের গণগ্রেপ্তার করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, নাশকতা ঠেকাতে অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এরই মধ্যে রাজধানীসহ সারা দেশে ৪৩ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করা হয়েছে। বার্তা সংস্থা বাসস জানিয়েছে বুধবার সন্ধ্যা থেকেই রাজধানীতে ২০ প্লাটুন বিজিবি সদস্য টহল শুরু করেন।

মামলার অভিযোগে যা আছে
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা ৮০ পয়সা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলাটি করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ পরিচালক হারুন -অর রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলার এজাহারে জানা যায়, ১৯৯১-৯৬ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন রমনা শাখার সোনালী ব্যাংকে প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল নামে একটি অ্যাকাউন্ট খুলেন। যার নম্বর ৫৪১৬। ওই হিসাবে ইউনাইটেড সৌদি কমার্শিয়াল ব্যাংকের ডি ডি নং ১৫৩৩৬৭৯৭০ তে ১৯৯১ সালের ৯ জুন ১২ লাখ ৫৫ হাজার মার্কিন ডলার, যা তৎকালীন বাংলাদেশি মুদ্রায় চার কোটি ৪৪ লাখ ৮১ হাজার ২১৬ টাকা জমা হয়। পরে খালেদা জিয়া বিভিন্ন সময়ে ওই অ্যাকাউন্ট থেকে বিভিন্ন আসামির নামে ‘এফডিআর’ করে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা ৮০ পয়সা আত্মসাতের উদ্দেশে উত্তোলন করেন। যা দণ্ডবিধির ৪০৯ এবং ১০৯ ধারা ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ ২ নং আইনের ৫ (২) ধারায় অপরাধ করেছেন। এজাহারে ঘটনার সময়কাল হিসেবে ১৩ নভেম্বর ১৯৯৩ হতে ২৮ মার্চ ২০০৭ সালকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মামলায় আসামি যারা
এ মামলায় আসামি সংখ্যা ছয়জন। ওই মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও আসামি। তিনি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের বড় ছেলে। অন্য আসামিরা হলেন, মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ,প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

মামলার এজাহারে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ আসামি ছিলেন সাতজন। তদন্ত করে অভিযোগপত্র দেওয়ার সময় আসামি সাইয়েদ আহমেদ ও গিয়াস উদ্দিন আহমেদকে বাদ দেওয়া হয়। মামলায় নতুন করে আসামি করা হয় সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকীকে।

পলাতক যারা
মামলার শুরু থেকেই পলাতক আছেন মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এবং মমিনুর রহমান। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান রয়েছেন লন্ডনে। তাঁকে পলাতক দেখানো হয়েছে।

৪৩ দিন হাজির ছিলেন খালেদা জিয়া
মামলায় খালেদা জিয়া আদালতে ৪৩ কার্যদিবস আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য দেন আট কার্যদিবস। মামলাটি ২৬১ কার্যদিবস পরিচালিত হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় এক মাস নয়দিন কারাভোগ করেছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রায়ে সাজা হলে এসব দিন তার সাজা থেকে বাদ যাবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ওয়ান ইলেভেনের সময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আটক হওয়ার পর রমনা থানায় ৩ জুলাই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা দায়ের করা হয়। পরে এ মামলায় তাঁকে আটক দেখানো হয় ১ মাস ৯ দিন অর্থাৎ ২০০৮ সালের ১৭ জুলাই থেকে ২৬ আগস্ট পর্যন্ত খালেদা জিয়া কারাভোগ করেন।

চার বছরে চার বিচারক
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার অভিযোগ আদালত আমলে নেওয়ার পর থেকে রায় প্রদান পর্যন্ত চার বছরে চারজন বিচারক পরিবর্তন হয়েছেন। প্রত্যেক বিচারকের ওপর অনাস্থা দিয়ে বিচারক পরিবর্তনের জন্য আবেদন করে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তবে সর্বশেষ বিচারকের ওপর অনাস্থা দিলেও আবেদন হাইকোর্টে নামঞ্জুর হয়।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ এ মামলার অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে বিচার কার্যক্রম শুরু করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়। পরে ওই বিচারকের প্রতি খালেদা জিয়া অনাস্থা জানালে মামলা কার্যক্রম শুরু করেন ঢাকা বিশেষ জজ আদালত ৩-এর বিচারক আবু আহমেদ জমাদার। তিনি প্রায় আড়াই বছর ধরে এ মামলা পরিচালনা করে মামলার প্রায় শেষ প্রান্তে নিয়ে আসেন। যুক্তিতর্কের পূর্বে তিনি খালেদা জিয়াকে আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য দেওয়ার জন্য বলেন। কিন্তু খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা তাঁর প্রতি আনাস্থা জ্ঞাপন করলে তিনি তা নাকচ করে দেন। এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করলে ২০১৭ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি আদালত পরিবর্তনে হাইকোর্টে আবেদন করলে ২০১৭ সালের ৮ মার্চ এ মামলা আদালত পরিবর্তনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লার আদালতে মামলা স্থানান্তর করা হয়। এরপর গত বছরের ৩০ মার্চ থেকে খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানি গ্রহণ করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধেও অনাস্থা জ্ঞাপন করেন খালেদা জিয়া। তার বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়, এ মামলার অভিযোগপত্র দেওয়ার সময় এ বিচারক দুদকের কর্ককর্তা ছিলেন এবং তিনি অভিযোগপত্র দিয়েছিলেন। পরে হাইকোটের নির্দেশে ২০১৭ সালের ১৭ মে পুনরায় মামলা পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয় বর্তমান বিচারক ড. আখতারুজ্জামানকে।

এক নজরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা:
রমনা থানায় ২০০৮ সালের ৩ জুলাই মামলা দায়ের করা হয়। মামলার বাদী ও তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক হারুন-অর রশিদ। এজাহারে টাকা আত্মসাতের (ঘটনার) সময়কাল হিসেবে ১৩ নভেম্বর ১৯৯৩ হতে ২৮ মার্চ ২০০৭ সালকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ২০১০ সালের ৫ আগস্ট অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। মামলার কার্যদিবস-২৬১ দিন, খালেদা জিয়া হাজিরা দেন ৪৩ দিন, খালেদা জিয়া আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্য দেন আটদিন। গত ২৫ জানুয়ারি ২০১৮ রায়ের দিন ধার্য করেন বিশেষ আদালত ৫-এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান রায়ের দিন ধার্য -৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮।

Check Also

bnp-flag

নতুন সংকটে বিএনপি

দীর্ঘদিন ক্ষমতায় বাইরে থাকার ফলে দলীয় কোন্দল ও উপনির্বাচন-স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভরাড়ুবি এবং সাংগঠনিক দুর্বলতাসহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin