‘রংপুরে দ্বিতীয় স্থানে আ.লীগ-বিএনপির হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেছেন রংপুর মেয়র নির্বাচনে একলাখ ভোটের ব্যাবধানে তাদের প্রার্থী লাঙ্গল প্রতীকের মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা জয়ী হবেন। ভোট উৎসবের মধ্যে দিয়ে রংপুরবাসী ব্যালট বিপ্লব ঘটাবেন।

রংপুর থেকে টেলিফোনে পূর্বপশ্চিম বিডি ডট নিউজের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন । তিনি বলেন, রংপুর আসা গণমাধ্যম কর্মী থেকে শুরু করে সকল দলের নেতা কর্মীদের কাছে ভোটারদের মনোভাব দৃশ্যমান হয়েছে।

নিকটতম প্রতিদন্ধী কে হচ্ছেন এই প্রশ্নের জবাবে রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, যিনি হন না কেন তার প্রাপ্ত ভোটের ব্যাবধান জাতীয় পার্টির প্রার্থী থেকে অনেক দূরে থাকবে।

দ্বিতীয় অবস্থানের জন্য আওয়ামী লীগ বিএনপি হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করছে। উল্লেখ্য রংপুরে নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হয়েছেন শরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু ও ধানের শীষ নিয়ে বিএনপির প্রার্থী হয়েছেন কাওসার জামান বাবলা ।

এরশাদ বললেন, রংপুরে লাঙল বিপুল ভোটে জিতবে

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ বলেছেন, রংপুরে সিটি করপোরেশন নির্বাচন হবে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে। কোনো অনিয়ম গণ্ডগোল হবে না। এখন পর্যন্ত যে আভাস পাচ্ছেন তাতে তিনি নিশ্চিত রংপুরের দূর্গ তিনি ফিরে পাচ্ছেন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন।

তার প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ না বিএনপি হবে সেটি তিনি জানেন না। মানুষের মধ্যে লাঙল প্রতীকের প্রতি স্বতস্ফূর্ত সমর্থন দেখা যাচ্ছে। এরশাদ সোমবার রংপুর গেছেন। সেখানকার ভোটার হিসেবে তিনি ভোট দেবেন। গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছেন তবে কোনো নির্বাচনী প্রচারণায় যাননি। জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা বলছেন, এরশাদের উপস্থিতি তাদের শক্তিকে দ্বিগুন করেছে।

কর্মীদের মনোবল বাড়িয়ে দিয়েছে। মানুষের মধ্যেও পরোক্ষ প্রভাব পরেছে। জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেছেন, তাদের প্রার্থী একলাখ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করবেন। জাতীয় পার্টির বিশ হাজার কর্মী কেন্দ্র পাহারা দেবে। কেন্দ্রিয় নেতাকর্মীরা সিটি করপোরেশন এলাকার বাইরে বিভিন্ন হোটেল রিসোর্টে অবস্থান করছেন।

তারসঙ্গে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, এমপি ইয়াহিয়া চৌধুরীসহ অসংখ্য নেতা রয়েছেন। কর্মীদেরকে তারা এতোদিন প্রচারণার কৌশল শৃঙ্ক্ষলার সঙ্গে নির্ধারণ করে দিয়েছেন। রুহুল আমিন হাওলাদার আরো বলেছেন, তাদের প্রার্থী তুমুল জনপ্রিয় একজন রাজনৈতিক কর্মী যার সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। সাধারণ মানুষ তাকে ভালোবাসে।

বিগত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি ৮৭ হাজার ভোট পেয়েছিলেন। এবার জাতীয় পার্টির শক্তি, এরশাদের ইমেজ ও প্রার্থীর জনপ্রিয়তা মিলে লাঙলের পক্ষে ব্যালট বিপ্লব ঘটে যাবে। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেছেন, রংপুরের বিজয়ের মধ্য দিয়ে প্রমাণ হবে জাতীয় পার্টির রাজনীতির জন্য শুভদিন আসছে। রংপুরের দূর্গ পুণরুদ্ধার হচ্ছে।

উৎসঃ   purboposhchim

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.