hisbullah

ইসরাইলের বিরুদ্ধে হামাসের কঠোর হুঁশিয়ারি

ইসরাইলি সেনাদের বর্বরোচিত হামলায় অন্তত চার ফিলিস্তিনি নিহত হওয়ার পর তেল আবিবের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস।

সংগঠনটি শুক্রবার রাতে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলেছে, ইসরাইলি সেনাদের হামলায় ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীদের নিহতের ঘটনায় আরেকবার প্রমাণিত হয়েছে ইহুদিবাদী ইসরাইল একটি অপরাধী সরকার।

হামাসের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জেরুজালেমকে কেন্দ্র করে মার্কিন প্রেসিডেন্টের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীরা জানিয়ে দিয়েছেন, তারা কখনোই ট্রাম্পের ঘোষণাকে বাস্তবায়িত হতে দেবে না বরং নিজেদের ন্যায়সঙ্গত অধিকার আদায় করে ছাড়বে।

শুক্রবার অধিকৃত জর্দান নদীর পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকা ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে। ফিলিস্তিনের জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত ঘোষণার প্রতিবাদে এসব বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

ইহুদিবাদী ইসরাইলি সেনারা পাশবিক কায়দায় এসব বিক্ষোভ দমন করে। তাদের গুলিতে অন্তত চার ফিলিস্তিনি নিহত এবং অপর ৩৬৭ জন আহত হন।

ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে ইরানের সেনা কমান্ডারের ফোনালাপে উদ্বিগ্ন ইসরাইল

ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ আন্দোলনের নেতাদের সঙ্গে ইরানের শীর্ষস্থানীয় সেনা কমান্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলায়মানির টেলিফোনালাপে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে ইসরাইল। ইহুদিবাদী পত্রিকা মা’রিভ জানিয়েছে, তেল আবিব মনে করছে, এই টেলিফোনালাপে জেনারেল সোলায়মানি হামাস ও ইসলামি জিহাদ আন্দোলকে ইসরাইল বিরোধী অভিযান পরিচালনার জন্য সবুজ সংকেত দিয়েছেন।

ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র কুদস বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল সোলায়মানি সম্প্রতি হামাসের সামরিক শাখা ইজ্জাদ্দিন কাসসাম ব্রিগেড এবং ইসলামি জিহাদ আন্দোলনে সামরিক কমান্ডারদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন।

এসব ফোনালাপে তিনি ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলনের প্রতি সর্বাত্মক সহযোগিতা দিতে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রস্তুতির কথা ঘোষণা করেন।

দৈনিক মা’রিভ লিখেছে, গাজা থেকে ইসরাইলি লক্ষ্যবস্তুতে অভিযান পরিচালনার জন্য হামাস ও জিহাদ আন্দোলনকে সবুজ সংকেত দিয়েছেন ইরানের কুদস ব্রিগেডের কমান্ডার।

সম্প্রতি ইরাক ও সিরিয়ায় শেষ হওয়া আইএস বিরোধী অভিযানে দেশ দু’টিকে সামরিক উপদেশ দেয়ার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন জেনারেল সোলায়মানি। মধ্যপ্রাচ্যের এই দু’টি দেশ থেকে উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস নির্মূলে সোলায়মানি কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করেন বলে মনে করা হয়।

এদিকে লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহর মহাসচিব সাইয়্যেদ হাসান নাসরুল্লাহ সোমবার এক ভাষণে তৃতীয় ইন্তিফাদা গণআন্দোলন শুরু করার জন্য ফিলিস্তিনি যুবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

ফিলিস্তিনি সংগঠনগুলো তার এ আহ্বানকে স্বাগত জানিয়েছে। এমনকি মাহমুদ আব্বাসের নেতৃত্বাধীন ফাতাহ আন্দোলনও হিজবুল্লাহ নেতার বক্তব্যে সন্তোষ প্রকাশ করেছে। ফাতাহ আন্দোলনের শীর্ষস্থানীয় নেতা আব্বাস জাকি বলেছেন, হিজবুল্লাহ মহাসচিবের আহ্বানে সাড়া দেবে ফাতাহ আন্দোলন।

rtnn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.