rongpur_parthi

বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলের রিট খারিজ

ঋণ খেলাপির অভিযোগ এনে রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল চেয়ে রিট খারিজ করেছেন আদালত। বিএনপির প্রার্থীর নাম কাওছার জামান বাবলা।

রিট আবেদনের শুনানিতে হাইকোর্টের বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রিটটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন।

রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট শামীম খালেদ, সঙ্গে ছিলেন রোকনুজ্জামান।

বিএনপিতে আগ্রহী বাড়ছে এগিয়ে তাবিথ আউয়াল

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির মনোনয়ন পেতে আগ্রহীর সংখ্যা বাড়ছে। গুলশান কার্যালয় এবং আস্থাভাজন নেতাদের কাছে ভিড় জমাচ্ছেন প্রত্যাশীরা।  মহানগর উত্তর বিএনপির নেতাকর্মীরা এরই মধ্যে নগরজুড়ে পোস্টার সাঁটিয়ে কার মনোনয়ন পাওয়া উচিত সেই আওয়াজ দিচ্ছেন।

উত্তর সিটি নির্বাচনে মেয়র পদের জন্য বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ছয় নেতার নাম নিয়ে আলোচনা হচ্ছে।  তারা হলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মেজর (অব:) কামরুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ূম, বিএনপির সহ-প্রকাশনা সম্পাদক শাকিল ওয়াহেদ এবং বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য এবং গত মেয়র নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নে নির্বাচন করা তাবিথ আউয়াল।

আর ২০ দলীয় জোটের শরিক বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থও আছেন আলোচনায়। এসব নেতার অনেকে ইতোমধ্যে দল চাইলে নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি আবদুল আউয়াল মিন্টু, মেজর (অব:) কামরুল ইসলাম ও আন্দালিব রহমান পার্থ খালেদা জিয়ার সাথে তার গুলশানের কার্যালয়ে সাক্ষাতে আলোচনা করেছেন ডিএনসিসির উপনির্বাচন নিয়ে। গত রোববার বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও আলোচনা হয়েছে ডিএনসিসি নির্বাচনে অংশ গ্রহণের বিষয়ে। জানা গেছে, নির্বাচনের তফসিল প্রকাশের পর প্রার্থী ঘোষণা করবে বিএনপি।

চারদলীয় জোট সরকারের বাণিজ্য উপদেষ্টা, সাবেক এমপি ও যুবদলের সাবেক সভাপতি বরকত উল্লাহ বুলু সফল রাজনীতিবিদ হিসেবে পরিচিত।  দেশব্যাপী রয়েছে তার পরিচিতি। এ জন্য সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে বরকত উল্লাহ বুলু মনোনয়ন পাক এমনটিই চাচ্ছেন দলের একটি অংশ।  তবে তার প্রতিপক্ষ নেতাকর্মীদের প্রচারণা হচ্ছে, সিটি রাজনীতির সাথে তার তেমন সংশ্লিষ্টতা নেই।

গুলশান, বাড্ডা, ক্যান্টনমেন্টসহ উত্তরের বড় একটি অংশের এমপি ছিলেন মেজর (অব:) কামরুল ইসলাম। সে কারণে উত্তরের নির্বাচনে তাকে প্রার্থী করা হলে সুফল আসতে পারে দলের একটি অংশের মত থাকলেও তার প্রতিপক্ষ নেতাকর্মীদের বক্তব্য ভিন্ন। কেউ কেউ তাকে এখনো সংস্কারপন্থী নেতা হিসেবে বিবেচনা করছেন।

এম এ কাইয়ূম বিএনপির ঢাকা উত্তরের সভাপতি হিসেবে সিটি নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পাওয়ার দাবিদার হলেও একটি মামলার কারণে তার দেশে ফেরা নিয়ে রয়েছে অনিশ্চয়তা।  ফলে দলের অনেকেই তাকে নিয়ে ভাবতে পারছে না। কিন্তু তার অনুসারীরা তার পক্ষে সরব রয়েছেন।  তাই এরই মধ্যে উত্তর ঢাকায় কাইয়ূমের পক্ষে পোস্টার সাঁটিয়ে দলের মনোনয়ন দাবি করছেন তার অনুসারীরা।

এ দিকে তাবিথ আউয়াল আবারো মেয়র নির্বাচনে অংশ নিক, এমন আশা দলের অনেকের। তার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি বলে বিএনপিতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে।  মেয়র পদে মনোনয়ন পেতে তৎপরতা চালাচ্ছেন সম্ভাব্য আরেক প্রার্থী শাকিল ওয়াহেদ।

২০ দলীয় জোট থেকে মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য আলোচনায় আছেন বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ।  তবে বিএনপির বাইরে থেকে কাউকে মনোনয়ন দেয়ার পক্ষে নন অনেক নেতা। তারা মনে করছেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ঢাকা সিটিতে তাদের বিজয় হবে। আর গত সিটি নির্বাচনের মতো এবারো জোরজবরদস্তি করা হলে তা বর্তমান সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানকে আরো বেশি প্রশ্নবিদ্ধ করবে।

Check Also

২০২৩ সালে ক্ষমতায় যাওয়ার রোড ম্যাপ করছে বিএনপি?

‘আগামী দিনের বিএনপির নেতৃবৃন্দ’ এই শিরোনামে লন্ডনে বিএনপির পলাতক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া সারাদেশে নেতৃবৃন্দের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin