kha_tare_job

খালেদা-তারেক অযোগ্য হলে জোবাইদাই ভরসা

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান আগামী জাতীয় নির্বাচনে অযোগ্য হলে দলটির নেতৃত্বের প্রধান ভরসা হতে পারেন ডা. জোবাইদা রহমান। তিনিই তখন বিএনপির হাল ধরতে পারেন বলে দলটির মধ্যে ব্যাপক আলোচনা রয়েছে।

ডা. জোবাইদা রহমান বর্তমানে স্বামী তারেক রহমান ও তার কন্যার সঙ্গে লন্ডনে অবস্থান করছেন। লন্ডণে থাকলেও দেশের চলমান রাজনীতি ও দলীয় সাংগঠনিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে তিনি দলের চেয়ারপার্সনসহ অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে সার্বক্ষনিকভাবে যোগাযোগ রাখছেন। হাইকমাণ্ডের নির্দেশনা মতো দলীয় কর্মকাণ্ডেও নিজেকে সম্পৃক্ত করছেন।

রাজনীতির পাশাপাশি ডা. জোবাইদা রহমান প্রফেশনালভাবেই নিজেকে প্রস্তুত করছেন। ইতোমধ্যে তিনি লন্ডনে কার্ডিওলজিতে সফলতার সাথে উন্নতর ডিগ্রি লাভ করেছেন। এছাড়া লন্ডনে থেকেও নিয়মিত তিনি দলীয় সভা-সেমিনারে যোগ দিচ্ছেন।

সম্প্রতি লন্ডনে তারেক রহমানের ওপর লেখা দুটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে ডা. জোবাইদা রহমানের সরব উপস্থিতি বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

বিএনপি নেতারা মনে করেন, কোনো কারণে দল নেতৃত্বের বিপদে পড়লে উচ্চশিক্ষিত ডা. জোবাইদা রহমান দলের হাল ধরতে পারবেন। তার মধ্যে নেতৃত্বে গুণাবলীও রয়েছে। তার বিরুদ্ধে কোনো ধরনের সমালোচনাও নেই।

সাবেক নৌবাহিনী প্রধান রিয়াল অ্যাডমিরাল মাহবুব আলী খানের মেয়ে হিসেবে সিলেটেও জোবাইদা রহমানের বাড়তি জনপ্রিয়তাও রয়েছে। আর সেটাকে কাজে লাগাতে চান বিএনপির নেতাকর্মীরা। আগামী নির্বাচনে সিলেট সদর আসন থেকে তার মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়টিও বিএনপিতে ব্যাপক আলোচিত ।

জানা গেছে, আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগেই খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির মামলায় সাজা দিয়ে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা হতে পারে এমন আশঙ্কা রয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে। ইতোমধ্যে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাজা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি মামলা বিচারধীন রয়েছে। এমন পরিস্থিতির কথা আগাম চিন্তা করেই প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার কথা বিবেচনা করে রাখছে বিএনপি হাইকমাণ্ড। আর সে কারণেই ডা. জোবাইদা রহমানকে দলের নেতৃত্ব দেয়ার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে।

জিয়া অরফারেনজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিচার কার্য শেষ পর্যায়ে রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে এদুইটি মামলার রায় দ্রুততম সময়ের মধ্যেই দেয়া হবে।

বিএনপি নেতারা ইতিমধ্যে অভিযোগ করে বলেছেন, ক্ষমতাসীন সরকার যেনতেনভাবে বিএনপি চেয়ারপার্সনকে সাজা দিয়ে আগামী নির্বাচনে অযোগ্য করার চক্রান্ত করছে। তারা মামলাগুলোর বিচার কার্য দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছেন। স্বয়ং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াও আদালত ও আদালতের বাইরে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেছেন, আমি সাধারণ একজন মানুষ হিসেবে বিচার পাচ্ছি না। কেন আমার বিচার বিশেষ আদালতে করা হচ্ছে। আদালতে ন্যায় বিচার পাওয়া নিয়েও তিনি সংশয় প্রকাশ করেছেন।

দুর্নীতির দুই মামলার বিচার যখন প্রায় শেষ পর্যায়ে ঠিক তখন খালেদা জিয়া ও তার সন্তানদের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের অভিযোগ রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দুর্নীতি দমন কমিশনকে বিদেশে সম্পদ থাকার বিষয়টি তদন্ত করতেও বলেছেন।

গত বৃহস্পতিবার কম্বোডিয়া সফর শেষে গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌদিআবর-কাতারসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে খালেদা জিয়া ও তার সন্তানদের বিপুল পরিমাণ সম্পদ থাকার সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার কথা বলেন। যদিও বিএনপি প্রধানমন্ত্রীর এমন অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে।

দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাবে বলেছেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই এমন মিথ্যা, বানোয়াট অভিযোগ করা হয়েছে। দুনিয়ার কোথাও খালেদা জিয়া ও তার সন্তানদের সম্পদের কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এটা ডাহা মিথ্যা অপপ্রচার।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, সম্পদের তথ্য প্রমাণ করতে না পারলে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা নেয়ারও হুমকি দিয়েছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর অভিযোগের বিষয়টি বেশ গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে বিএনপি। গত রোববার অনুষ্ঠিত দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও এনিয়ে আলোচনা হয়েছে। স্থায়ী কমিটির বৈঠক থেকে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবীও জানানো হয়েছে। তবে আওয়ামী লীগ তার অবস্থানে অনড় থেকে খালেদা জিয়ার অর্থপাচারের বিষয়টি সামনে আনার চেষ্টা করছে।

পূর্বপশ্চিমবিডিডটকম

Check Also

khaleda_zia

খালেদা জিয়ার জামিনের অপ্রকাশ্য যত শর্ত

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অন্তত দু`দিন বলেছেন যে, খালেদা জিয়া এখনও গৃহবন্দি আছেন। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin