tareq-boi

সত্য বলায় তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচার বন্ধ করেছে সরকার: খালেদা জিয়া

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশের মানুষের ভালবাসায় জিয়ার পরিবার কৃতজ্ঞ। সত্য বলায় তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে এবং তার বক্তব্য প্রচার বন্ধ করেছে সরকার।

গুলশান কার্যালয়ে শনিবার রাতে তারেক রহমানকে নিয়ে লেখা তিনটি বইয়ে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

রাত সাড়ে ৮টায় বিএনপি চেয়ারপারনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপি সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান দেশনায়ক তারেক রহমানের উপর লেখা তিনটি বইয়ের আনুষ্ঠানিকভাবে মোড়ক উন্মোচন করছেন বেগম খালেদা জিয়া। এসময় বিএনপি সিনিয়র নেতৃবৃন্দ এবং বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবীগণ উপস্থিত ছিলেন।

মোড়ক উন্মোচন করা বইগুলো হলো-মাহাবুবুর রহমানের লেখা তারেক রহমান ও বাংলাদেশ, এম সাইফুর রহমানের লেখা তারেক রহমানের রাজনীতি ও রাষ্ট্রভাবনা এবং ভিপি সাইফুল ইসলামের সম্পাদনায় দীপ্তিমান দেশনায়ক।

শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না: খালেদা জিয়া

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। একই সঙ্গে জনগণের ভোটের অধিকারও ফিরিয়ে দিতে হবে। এজন্য প্রয়োজন নির্দলীয় সরকার। শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না, হবেও না।

জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে রবিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত বিএনপির সমাবেশে বিশাল জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে তিনি আগামী নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের জন্য কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, সরকারের কথায় কান না দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনে লক্ষ্যে ভূমিকা রাখুন। আগামী জাতীয় নির্বাচনে কোনো ইভিএম ব্যবহার করা চলবে না।

তিনি বলেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। একই সঙ্গে জনগণের ভোটের অধিকারও ফিরিয়ে দিতে হবে। এজন্য প্রয়োজন নির্দলীয় সরকার।

মানুষ পরিবর্তন চায় মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, সরকার বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের গুম হত্যা করছে। তাদের ওপর নানা রকম জুলুম করছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর দেশে গুম, খুন ও নির্যাতন বেড়ে গেছে। তারা দ্রব্য মূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে জনগণ আওয়ামী লীগের দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়। আর সেই মুক্তির লক্ষ্যেই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে হবে।

তিনি এও বলেন, আগামী নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় এলে দেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে আওয়ামী লীগের জুলুম ক্ষমা করে দেয়া হবে। কোনো ধরনের প্রতিহিংসার রাজনীতি করবে না বিএনপি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেন, বিচারবিভাগকে পুরোপরি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যেই অন্যায়ভাবে প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে এবং তা করা হয়েছে বিদেশে সরকারের এজেন্সির লোক পাঠানোর মাধ্যমে। এ কারণে তিনি দেশে আসতে পারেননি। ফলে দেশ আজ চরম ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে।

সরকারি চাকরিজীবীদের নির্ভয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি নেত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারি চাকরিজীবীদের ভয় দেখাচ্ছে। তারা বলছে, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরি চলে যাবে। ক্ষমতায় গেলে বিএনপি কারো চাকরি কেড়ে নেবে না। সরকারি কর্মকর্তাদের দক্ষতা দেখা হবে। কারো চাকরি খাওয়া হবে না। এবিষয়ে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন।

আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, আওয়ামী লীগ বলছে- বিএনপি ক্ষমতায় আসলে মানুষ হত্যা করবে। আমরা মানুষ হত্যা করি না, মানুষ হত্যা করে আওয়ামী লীগ। এটা আওয়ামী লীগের কাজ, বিএনপির নয়।

এসময় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সমাবেশ সফল যেন না হয় এজন্য অনেক বাধা দেয়া হয়েছে। এমনকি আমিও যাতে আপনাদের সামনে পৌঁছাতে না পারি এজন্য গুলশানে বাস দিয়ে রাস্তা আটকে রাখা হয়।

তিনি বলেন, এই হলো সরকারের অবস্থা। এরা যে কত ছোট মনের তা প্রমাণ করে দিয়েছে। এতো ছোট মন নিয়ে রাজনীতি করা যায় না।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জনগণকে সবচেয়ে বেশি ভয় পায়। এ জন্য বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদলের ছেলেদের প্রতিনিয়ত সরকার জেলে পুড়ছে।

উৎসঃ   আরটিএনএন

Check Also

২০২৩ সালে ক্ষমতায় যাওয়ার রোড ম্যাপ করছে বিএনপি?

‘আগামী দিনের বিএনপির নেতৃবৃন্দ’ এই শিরোনামে লন্ডনে বিএনপির পলাতক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া সারাদেশে নেতৃবৃন্দের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin