bnp_upodesta

বিএনপির সাংগঠনিক ত্রুটি খালেদা জিয়ার নজরে এনেছেন উপদেষ্টারা

খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকখালেদা জিয়ার সামনে দলের সাংগঠনিক ত্রুটির বিষয়টি তুলে ধরেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টারা। দেশের বিভিন্ন এলাকায় কমিটি না থাকা, অসম্পূর্ণ কমিটি এবং অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলোর থেমে থাকা কমিটির কার্যক্রম বন্ধ থাকার বিষয়টি চেয়ারপারসনের নজরে এনেছেন তারা।

মঙ্গলবার রাতে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে খালেদা জিয়ার সামনে এসব বিষয় উত্থাপন করেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টারা। এটি খালেদা জিয়ার সিরিজ বৈঠকের অংশ। এর আগে গত ১৮ অক্টোবর লন্ডন থেকে দেশে ফেরার পর দলের স্থায়ী কমিটি, ভাইস চেয়ারম্যান ও ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

মঙ্গলবারের বৈঠকে অংশ নেওয়া একাধিক উপদেষ্টার সঙ্গে কথা হয় বাংলা ট্রিবিউনের। তারা জানান, বৈঠকে প্রায় ১৫-২০ জন উপদেষ্টা আলোচনা করেছেন। তারা সাংগঠনিক দিক তুলে ধরার পাশাপাশি নির্বাচন নিয়েও নিজেদের অবস্থান ব্যক্ত করেন। এতে আগামী নির্বাচন কোনও দলীয় সরকারের অধীনে হবে না এবং শেখ হাসিনার অধীনে কোনও নির্বাচনে যাওয়া যাবে না; এ বিষয়ে একমত হন উপদেষ্টারা।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, সাবেক আইজিপি আবদুল কাইয়ূম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বৈঠকে সাংগঠনিক দিক উপজীব্য করেই আলোচনা হয়েছে। এর বেশি বলতে পারবো না।’

বৈঠক সূত্র জানায়, খালেদা জিয়া তার উপদেষ্টাদের দলের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির আহ্বান জানিয়েছেন। যেখানে কমিটি নেই কিংবা স্থগিত আছে এমন এলাকাগুলোতে বেশি বেশি যাতায়াতের পরামর্শ দেন তিনি।

সূত্রের দাবি, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন আদায়ের জন্য শান্তিপূর্ণভাবে গণতান্ত্রিক আন্দোলন গড়ে তুলতে জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক নিবিড় করার নির্দেশ দিয়েছেন খালেদা জিয়া। গুলশানে তার কার্যালয়ে রাত সাড়ে ৯টার দিকে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শেষ হয় রাত পৌনে ১২টার দিকে।

৭৬ সদস্যের উপদেষ্টা কাউন্সিল সদস্যদের মধ্যে তিনজন যথাক্রমে হারুনার রশীদ মুন্নু, ফজলুর রহমান পটল ও আখতার হামিদ সিদ্দিকী মারা গেছেন।

বৈঠকে উপদেষ্টা কাউন্সিলের ৫৩ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। তারা হচ্ছেন উকিল আব্দুস সাত্তার, লুৎফর রহমান খান আজাদ, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আমানউল্লাহ আমান, মিজানুর রহমান মিনু, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, আনহ আখতার হোসেন, মাজেদুল ইসলাম, জয়নুল আবদিন ফারুক, জয়নাল আবেদিন ভিপি জয়নাল,

মনিরুল হক চৌধুরী, মেজর (অ.) কামরুল ইসলাম, সৈয়দ মেহেদি আহমেদ রুমি, এম এ কাইয়ুম, জহুরুল ইসলাম, ইসমাইল জবিউল্লাহ, আবদুর রশিদ, হায়দার আলী, জিয়াউর রহমান খান, তাজমেরী এস ইসলাম, শাহিদা রফিক, গোলাম আকবর খন্দকার, কাজী আসাদ, কবির মুরাদ, অধ্যাপক শাহজাহান মিয়া, একরামুজ্জামান, ফজলুর রহমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালী, নজমুল হক নান্নু, তাহমিনা রুশদীর লুনা, এনামুল হক চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম, সুকোমল বড়ুয়া, বিজন কান্তি সরকার, আবদুল হক,

তৈমুর আলম খন্দকার, কামরুল মুনির, বোরহান উদ্দিন, আবদুল বায়েছ ভুঁইয়া, আবদুস সালাম, শাহাজাদা মিয়া, এস এম ফজলুল হক, এম এ লতিফ, আবদুল কুদ্দুস, আবদুল মান্নান তালুকদার, ফরহাদ হালিম ডোনার, খন্দকার মুক্তাদির আহমেদ, মামুন আহমেদ, সৈয়দ শামসুল আলম, হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, মাহবুবুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উপস্থিত ছিলেন।

উৎসঃ   বাংলা ট্রিবিউন

খালেদার সাজা হলেই বিএনপির হাল ধরবেন জোবাইদা !

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টে দুর্নীতির অভিযোগে পৃথক দুই মামলার বিচার প্রক্রিয়া শেষ পর্যায়ে। আসামিদের আত্মপক্ষ সমর্থনে বক্তব্যের পর সাফাই সাক্ষী ও যুক্তিতর্ক। এরপরই রায়। এ মামলায় প্রধান আসামি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। দুই মামলায় ‘সাজা’ হওয়ার আশঙ্কা করছেন তার দলের নেতা-কর্মীরা।

সম্প্রতি বিশেষ আদালতে নিজের ‘সাজা’ শঙ্কার কথা জানিয়েছেন বেগম জিয়া। তার সাজা হলে বিএনপির পরিণতি কী হবে তা নিয়ে দলের পক্ষে প্রকাশ্যে মুখ খোলেনি কেউ। তবে এ নিয়ে দলের ভিতরে-বাইরে নানা কৌশল নিয়ে আলোচনা চলছে। খালেদা জিয়া জেলে গেলে ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের অনুপস্থিতিতে তার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান হাল ধরুক—এমনটাও চান দলের অনেক নেতা। আবার দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নেতৃত্ব চান বড় একটা অংশ। তবে সরকারের দুজন মন্ত্রী এ নিয়েও আগাম বার্তা দিয়েছেন।

সম্প্রতি নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, খালেদা জিয়ার সাজা হলে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি। এরও কয়েকদিন আগে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, খালেদা জিয়ার সাজা হলে বিএনপি দুই-তিনভাগে বিভক্ত হবে। সব ভাগই পৃথক পৃথকভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। মন্ত্রীদের এ ধরনের কথাবার্তায় উদ্বিগ্ন বিএনপি। মন্ত্রীদের এসব বক্তব্যে ‘অসৎ’ উদ্দেশ্য দেখছেন বিএনপি নেতা-কর্মীরা।

অবশ্য বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্পষ্ট করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের গণতন্ত্রের প্রতীক। তাকে ছাড়া এদেশে কোনো নির্বাচন হবে না। মামলা আর জেলের ভয় পান না বিএনপি চেয়ারপারসনসহ দলের নেতা-কর্মীরা। নির্বাচনে অযোগ্য করার ষড়যন্ত্রও কাজে আসবে না।

দলের শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করে, শুধু বেগম জিয়াকেই নয়, গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকজন নেতাকেও ‘সাজা’ দিয়ে আগাম নির্বাচন দিতে পারে সরকার। বেগম জিয়া ও তারেক রহমানকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণাও করা হতে পারে। সেই সঙ্গে কয়েকজন সিনিয়র নেতাকেও সাজার জালে আটকানো হতে পারে। তখন বিএনপি কী করবে—তা নিয়েই ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে কথা বলছেন বেগম খালেদা জিয়া।

দলের অভ্যন্তরীণ একটি সূত্র জানিয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে লন্ডনে ছেলে তারেক রহমানের সঙ্গে দলের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব নিয়েও কথা বলেন খালেদা জিয়া। বিশেষ করে বেগম জিয়া জেলে গেলে দল কীভাবে কার নেতৃত্বে চলবে তা নিয়েও মা-ছেলে কথা হয়।

আপদকালীন একটি সংক্ষিপ্ত কমিটি গঠনের চিন্তার কথাও জানান বেগম জিয়া। তবে বিএনপির নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, আপদকালীন বিশেষ করে বেগম জিয়া জেলে গেলে তারেক রহমানেরও দেশে আসার সুযোগ থাকবে না। সেক্ষেত্রে দলের হাল ধরতে পারেন তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান। দলে তারও ক্লিন ইমেজ রয়েছে। নেতা-কর্মীরাও তাকে বেশ পছন্দ করেন।

বিএনপির হাইকমান্ড মনে করে, বিএনপিতে ভাঙন ধরাতে দীর্ঘদিন ধরেই একটি প্রক্রিয়া চলছে। মাঝখানে বন্ধ থাকলেও আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে ঘিরে সেটা আবার নতুন করে শুরু হয়েছে। একটি বিশেষ মহল আবারও বিএনপিতে ভাঙন ধরাতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মন্ত্রীদের বক্তব্যেও তা কিছুটা আন্দাজ করছে বিএনপির হাইকমান্ড।

ওই মহলটি শুধু বিএনপি নয়, জোটেও ভাঙন ধরাতে নানা তত্পরতা চালাচ্ছে। বিএনপি জোটকে খণ্ডবিখণ্ড করে দুর্বল অংশকে নিয়ে নির্বাচনে যাওয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে।

এ ব্যাপারে বিএনপিও বেশ সতর্ক। সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে পারেন এমন সব নেতাদের ব্যাপারেও সজাগ দৃষ্টি রাখছেন খালেদা জিয়া। লন্ডন বসে তারেক রহমানও মনিটরিং করছে। দেখা-সাক্ষাৎ হলে তাদেরকে ইশারা ইঙ্গিতে বিএনপি প্রধান বুঝিয়েও দিচ্ছেন, ‘দল ভাঙার চেষ্টা করলে পরিণাম শুভ হবে না। ’ সিনিয়র নেতাদের একাধিক বৈঠকেও এ কথা বলেন তিনি।

সর্বশেষ শনিবার রাতে ভাইস চেয়ারম্যানদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিএনপি প্রধান বলেছেন, ‘দলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের পরিণাম ভালো হবে না’। বিএনপির তরুণ নেতৃত্ব বলছে, ভবিষ্যতে ওয়ান-ইলেভেনের মতো কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে একটি সুবিধাভোগী গ্রুপ দল থেকে বেরিয়ে যেতেও পারে। তাতে দলের কোনো ক্ষতি হবে না।

মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মীরাই খালেদা জিয়ার হাতকে শক্তিশালী করবে। কেউ দল থেকে চলে গেলে তারই ক্ষতি হবে। দল সাময়িকভাবে কিছুটা অসুবিধায় পড়লেও এ বিপদ কাটিয়ে ওঠার মতো সক্ষমতা রয়েছে বিএনপির। ওয়ান-ইলেভেনে যারা বিএনপির সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন, তারা কোনোদিন দলের আস্থার জায়গায় থাকবে না। নেতা-কর্মীরা তাদের এখনো বিশ্বাস করছেন না।

বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবীরা আশঙ্কা করছেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচার প্রক্রিয়াও অনেক দূর এগিয়েছে। রায় ঘোষণার দিন খুব একটা দূরে নয়।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, খালেদা জিয়ারও ‘সাজা’ হতে পারে। ‘সাজা’ হলে খালেদা জিয়াকেও আত্মসমর্পণ করে জেলে যেতে হবে। পরে জামিন চেয়ে আপিল করতে হবে। সরকার হার্ডলাইনে থাকলে তাকেও জেলবাস করতে হবে। নির্বাচনে অযোগ্যও হতে পারেন বিএনপি প্রধান। তাদের মতে, জিয়া চ্যারিটেবল ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় নিম্ন আদালতে সাজা হলেও আইনি লড়াইয়ে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন খালেদা জিয়া। এতে নির্দোষ পাওয়ার আশা করছেন বিএনপি প্রধানের আইনজীবীরা।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ‘সাজা’ শঙ্কার কথা জানিয়েছেন খোদ খালেদা জিয়া। সম্প্রতি বিশেষ আদালতে হাজিরা দিতে গিয়ে তিনি বলেছেন, “দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে আমাকে সরাতে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করার জন্য ‘নীলনকশা’ প্রণয়ন করছে বর্তমান সরকার। তারই অংশ হিসেবে আমার বিরুদ্ধে এই মামলা দেওয়া হয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রী ও নেতারা হুমকি দিচ্ছে, আমাকে রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে বিদায় করে দেওয়া হবে।

মামলা শেষ হওয়ার আগেই বিচার নিয়ে কথা বলছেন, মুখে মুখে রায় দিয়ে দিচ্ছেন তারা। তারা বলছেন যে—এই মামলায় আমার সাজা হয়ে যাবে। আমাকে কাশিমপুর কারাগারে রাখা হবে। এসব বক্তব্য আদালত অবমাননার শামিল। এতে আমার আশঙ্কা হচ্ছে, আমি এ মামলায় আদৌ ন্যায়বিচার পাব না। ”

এ প্রসঙ্গে খালেদা জিয়ার মামলার অন্যতম আইনজীবী বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসনের মামলার কার্যক্রমের গতিপ্রবাহ দেখে মনে হচ্ছে সরকার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নতুন করে কোনো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ’

তিন ক্যাটাগরিতে ১০০ আসন ভাগ করবে বিএনপি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে ১০০ আসনে ৩ ক্যাটাগরিতে প্রার্থী চূড়ান্ত করবে বিএনপি। বাকি ২০০ আসনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দিতে চায় দলটি। তবে নির্বাচনি আসন নিয়ে খালেদা জিয়া এখনও চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত না নেওয়ায় সবকিছু নাও ঠিক থাকতে পারে। এক্ষেত্রে মনোনয়নের ক্যাটাগরি ঠিক থাকলেও প্রার্থী চূড়ান্তকরণ আলোচনা ও পর্যবেক্ষণের পর্যায়ে রয়েছে। বিএনপির নির্বাচনি কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

বিএনপির দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে একটি প্রার্থীতালিকা চূড়ান্ত করে দলটি। ওই তালিকা থেকে আগে ২০০ জনকে চূড়ান্ত করা হবে। এরপর বাকি ১০০ আসনে ভিন্ন-প্রক্রিয়ায় প্রার্থী দেবে দলটি।

এই তিন ক্যাটাগরির প্রথমটি হচ্ছে, ২০ দলীয় জোট ও জোটের শরিকদের মধ্যে কয়েকটি আসন বণ্টন করা হবে। এক্ষেত্রে জোটের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যদের আসন দেওয়া হবে। জোটের প্রধান শরিক জামায়াতে ইসলামীকে দেওয়া হবে ত্রিশ থেকে চল্লিশ আসন। এই আসনসংখ্যা কমতেও পারে। এখানে লক্ষণীয়, গত ১৫ নভেম্বর রাতে জোটের সঙ্গে বৈঠকে কয়েকজন নেতার প্রশ্নের জবাবে খালেদা জিয়া জানিয়েছেন, ‘আসন নিয়ে এখনপর্যন্ত কোনও বৈঠক হয়নি। এগুলো আরও পরে করা হবে।’

দ্বিতীয়ত, সমমনা অন্যান্য রাজনৈতিক দলের মধ্যে বিকল্প ধারা, নাগরিক ঐক্য, গণফোরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) ও কয়েকটি বামপন্থী দল রয়েছে। এই দলগুলোর শীর্ষ নেতারা যেসব স্থানে নির্বাচন করবেন, সে স্থানগুলোয় বিএনপি প্রার্থী দেবে না। চূড়ান্ত অর্থে আলোচনা না হওয়ায় সমঝোতার বিষয়টি পর্যবেক্ষণেই আটকে আছে।

তৃতীয় ক্যাটাগরি হলো, ২০০৮ সালের নির্বাচনের আগে যারা সংস্কারপন্থী ছিলেন এবং গত আট বছরে পেশাজীবীদের মধ্যে যারা খালেদা জিয়া ও বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে নিবিড়ভাবে যুক্ত হয়েছেন, তাদের মধ্যে থেকে নির্বাচিত কয়েকজনকে জন্য মনোনীত করা হবে।

এ বিষয়ে বিএনপির মনোনয়ন কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত এক নেতার ভাষ্য, ‘বেশ কিছু আসনে গত ১৫ বছরে চিকিৎসক, প্রকৌশলী, শিক্ষকদের অনেকেই রাজনৈতিকভাবে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন, কোনও সুনির্দিষ্ট দলের সঙ্গে যুক্ত না থাকলেও জনপ্রিয়তা ধরে রেখেছেন, এমন কয়েকজনকে হায়ার করা হতে পারে।’

এদিকে জামায়াতে ইসলামীর বিষয়ে কার্যক্রমে যুক্ত একনেতা জানান, ‘জামায়াত নির্বাচনের আগে দলীয় প্রতীক ফিরে পেলে বিএনপির ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়াবে। তৈরি হবে রহস্যও। যদি না পায়, তাহলে স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী দিতে হবে দলটিকে। এক্ষেত্রে জামায়াতের আসনবণ্টন জোটগতভাবে হলে সংশ্লিষ্ট আসনগুলোয় ধানের শীষের প্রতীকে কেউ প্রার্থী হবেন না।

জামায়াতের একটি সূত্র জানায়, আগামী নির্বাচনে হাইকোর্টের আদেশে স্থগিত থাকা দলীয় প্রতীক ফিরে না এলে ধানের শীষে নির্বাচন করার একটি প্রাথমিক সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। দলের নীতি-নির্ধারকরা ধানের শীষকে নির্বাচনি প্রতীক হিসেবে এগিয়ে রাখছেন। আর এ বিষয়টির একটি সুস্পষ্ট ইঙ্গিত মিলেছে গত ১৯ অক্টোবর নির্বাচন কমিশনে দেওয়া প্রস্তাবনায়।

দলের ভারপ্রাপ্ত আমির অধ্যাপক মুজিবুর রহমান ইসিতে দেওয়া প্রস্তাবে বলেছেন, ‘‘বিদ্যমান আইনে রিটার্নিং অফিসার ও সহকারী রিটানিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র দাখিলের বিধান ছাড়াও এরসঙ্গে নির্বাচন কমিশন ও অন-লাইনে দাখিলের বিধান করতে হবে। মনোনয়নপত্র ফরম-১ সংশোধন করতে হবে। ‘রাজনৈতিক দলের প্রার্থী’ শব্দগুচ্ছের জায়গায় ‘রাজনৈতিক দল/জোটের প্রার্থী শব্দগুচ্ছ’ প্রতিস্থাপন করতে হবে।’’

যদিও এ বিষয়টি নিয়ে জামায়াতের কোনও নেতাই মন্তব্য করতে রাজি নন। তবে কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরার সদস্য মাওলানা হাবিবুর রহমানের ভাষ্য, ‘নির্বাচনের আরও অনেক দেরি। এরই মধ্যে পরিস্থিতির নানা পরিবর্তন ঘটবে। কোন প্রতীকে নির্বাচন হবে, তা ঠিক করার আগে, ঠিক করতে হবে নির্বাচন হবে কোন ব্যবস্থাপনায়।’

বিএনপির তিন ক্যাটাগরিতে মনোনয়নের বিষয়ে জানতে চাইলে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘কোন পন্থায় মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হবে, এটা বিএনপির পার্লামেন্টারি বোর্ড ঠিক করবে। ফলে, এখনই এই বিষয়ে বলার সুযোগ নেই।’আস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.