আঙুল ফোটান? ভয়ঙ্কর বিপদ ডেকে আনছেন জানেন কি ??

অনেকক্ষণ কাজ করতে করতে অথবা অলসভাবে বসে থাকার মাঝে আঙুল ফোটানের কাজটা অনেকেই করে থাকেন৷ এই কাজের সঙ্গে সঙ্গে শব্দটাও অদ্ভুত ভাবে অনেকের খুব প্রিয়৷ কিন্তু এই অভ্যেস আপনার কত বড় বিপদ ডেকে আনতে পারে তা কি জানা আছে আপনার?

জানা যায়, আঙুল ফোটানোর সময় আঙুলের হাড়ের সংযোগস্থলে জমে থাকা তরল বস্তুর মধ্যে গ্যাসের গহ্বর সৃষ্টি হয়৷ ধীরে ধীরে তা এক গর্তের রুপান্তরিত হয়৷ এবং পরবর্তীকালে এর থেকেই সেই গিঁটে ধরতে পারে ফাটল৷

 স্বাধীনতার সময় থেকেই এই নিয়ে নানা গবেষণা চলে আসছে, যা নিয়ে হয়েছে বহু তর্ক-বিতর্কও৷ বহু আগে একদল গবেষক জানিয়ে ছিলেন, আঙুল ফোটানোর শব্দ হয় হাড়ের সংযোগস্থলে গ্যাসের বুদ্বুদ গঠনের কারণে।

তবে এই বক্তব্যে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন আরেক দল বিজ্ঞানী৷ তাঁদের মতে, হাড়ের সংযোগস্থলের ফাঁকা অংশে জমে থাকা তরল বুদ্বুদ ধ্বংসের ফলে এই শব্দের সৃষ্টি হয়।

কিন্তু পরবর্তীকালে অত্যাধুনিক ভিডিওতে ধরা পড়ে যে, ক্র্যাকিং এবং জয়েন্টের বিচ্ছেদের ফলে দ্রুত জমে থাকা তরলের মধ্যে গ্যাস ভরা গহ্বর সৃষ্টি হয় এই পিচ্ছিল তরল পদার্থ জয়েন্ট গুলোকে আবৃত করে রাখে।

এক বিজ্ঞানীর মতে, আমাদের সন্ধি গুলো হঠাৎ আলাদা হলে, ওই সময় সেখানে কোনও তরল পদার্থ অবশিষ্ট থাকে না। এসময় একটি ক্ষত সৃষ্টি হয় এতেই সৃষ্টি হয় শব্দ।

কিছু বিজ্ঞানীরা জানান, চাপের ফলে উৎপন্ন শক্তি হাড়ের কঠিন পৃষ্ঠতলের খুবই ক্ষতি করে থাকে। তাই এবার থেকে কিন্তু একটু সাবধান!

Check Also

যাত্রীর ফেলে যাওয়া আড়াই লাখ টাকা ফেরত দিলেন রিকশাচালক

রিকশাচালক নাজমুল। অভাবের সংসার চালাতে রোদ বা বৃষ্টিতেও রিকশা চালান। তার প্রয়োজন প্রচুর টাকা। তবুও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin