sabnur

‘এবার কেউ পাশে নেই, তাই কোনো আগ্রহ নেই’

একটা সময় ছিল শাবনূর মানেই ছবির সুপারহিট ছবি! শাবনূর মানেই দর্শকের সেরা পছন্দ। ভালোবেসে অনেকেই শাবনূরকে ঢাকাই ছবির ‘রানী’ বলে ডাকেন। বিয়ের পর সংসার নিয়ে বর্তমানে চলচ্চিত্র থেকে দূরে থাকলেও বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে কথা বললে শাবনূরের নাম ঘুরেফিরে চলে আসে।

নব্বই দশক থেকে বাংলা চলচ্চিত্রের সফল নায়িকাদের একজন শাবনূর। স্নিগ্ধ চেহারা, মায়াবী হাসি, চিরায়ত বাঙালি নারীর মধুমাখা চাহনি আর প্রাণবন্ত অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি দ্রুতই চলচ্চিত্রে স্থায়ী আসন করে নেন। যা এখনো ধরে রেখেছেন।

তিনি নিজেকে ঢাকাই ইন্ডাস্ট্রিতে প্রতিষ্ঠিত করেছেন অনন্য এক অভিনেত্রী হিসেবে। আজ নন্দিত এই অভিনেত্রীর জন্মদিন। জন্মদিন নিয়ে কোন পরিকল্পনা নেই তার। কারণ তার মা আছেন দেশের বাইরে অস্ট্রেলিয়াতে।

মাকে ছাড়া পরিকল্পনা করে নিজের জন্মদিন উদযাপন করার কোনো আগ্রহ নেই শাবনূরের। তবে নিজের কোন পরিকল্পনা না থাকলেও সারাটি দিনজুড়েই নানানভাবে সারপ্রাইজড হয়ে থাকেন জনপ্রিয় এ নায়িকা। বন্ধু’মহল থেকে শুরু করে সহকর্মী, ভক্ত, চলচ্চিত্রের নানান ব্যক্তিত্ব শাবনূরকে জন্মদিনে সারপ্রাইজড দিয়ে থাকেন।

হয়তো এবারও ব্যতিক্রম হবে না তার ক্ষেত্রে। নিজের জন্মদিন প্রসঙ্গে শাবনূর বলেন, ‘এই মুহূর্তে আম্মু নেই আমার পাশে। আগের বার অস্ট্রেলিয়াতে আম্মু এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা মিলে জন্মদিন উদ্যাপন করেছি। কিন্তু এবার কেউ পাশে নেই। তাই জন্মদিন নিয়ে কোন পরিকল্পনাও নেই। তাছাড়া কিছুদিন আগে আমি বেশ অসুস্থ ছিলাম। এখনো পুরোপুরি সুস্থ নই।

সবমিলিয়েই কোন অনুষ্ঠান করা হচ্ছে না এবার। জন্মদিনে শুধু সবার কাছে দোয়া চাই যেন সুস্থ থাকি, আমার একমাত্র সন্তান আইজেনকে নিয়ে যেন ভালো থাকতে পারি।’

১৯৭৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর যশোর জেলার শার্শা উপজেলার নাভারণে জন্মগ্রহণ করেন শাবনূর। তার পর্দার পেছনের নাম নূপুর। প্রথম চলচ্চিত্র কিংবদন্তি পরিচালক এহতেশামের ‘চাঁদনী রাতে’। ১৯৯৩ সালের ১৫ অক্টোবর ‘চাঁদনী রাতে’ মুক্তি পায়। সাব্বিরের বিপরীতে অভিনীত চলচ্চিত্রটি ব্যবসায়িকভাবে ব্যর্থ হয়। তবে শাবনূরের মুগ্ধতার ইতিহাস শুরু হয় ১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত জহিরুল হক পরিচালিত ‘তুমি আমার’ ছবিটি দিয়ে। সালমান শাহের সঙ্গে জুটি বেঁধে এই নায়িকা ১৪টি ছবি করেন। তার সবগুলোই রেকর্ড সংখ্যকভাবে ব্যবসায়িক সাফল্য পায়।

এটি বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে সফল জুটিগুলোর অন্যতম। বলা হয়ে থাকে সালমান-শাবনূর জুটি ইন্ডাস্ট্রির মিথ। পরবর্তীতে এদের আদর্শ মেনেই এখানে নায়ক-নায়িকার জুটি গড়ে উঠেছে। তবে সালমানের যুগে ওমর সানী, অমিত হাসান, আমিন খান, বাপ্পারাজদের সঙ্গেও অভিনয় করে সফলতা পান শাবনূর। সালমান মৃত্যু পরবর্তী সময়ে রিয়াজ, শাকিব খান ও ফেরদৌসসহ অনেক নায়কের সঙ্গেই অভিনয় করে সফল হন শাবনূর। তবে রিয়াজের সঙ্গে প্রায় অর্ধশত চলচ্চিত্রে জুটি বাঁধেন তিনি। সবগুলো ছবিই ছিলো ব্যবসায়িকভাবে সফল এবং আলোচিত।

ব্যক্তি জীবনে ২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর ব্যবসায়ী অনিক মাহমুদের সঙ্গে শাবনূরের আংটি বদল হয় এবং ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর তাকে বিয়ে করেন। তিনি অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস শুরু করেন ও নাগরিকত্ব লাভ করেন। ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর তিনি ছেলে সন্তানের মা হন। তার ছেলের নাম আইজান নিহান।

আগামী বছরে মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘এত প্রেম এত মায়া’ ছবির শুটিং করবেন শাবনূর। এই ছবির একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। টাইটেল গানে কণ্ঠ দেয়ার মাধ্যমে তিনি প্রথমবারের মতো চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেন। ছবিতে শাবনূরের বিপরীতে দেখা যাবে চিত্রনায়ক ফেরদৌসকে। আরো অভিনয় করছেন সাইমন সাদিক, পিয়া বিপাশা প্রমুখ। সবমিলে শাবনূরের কদর এখনো অনেক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.