facebook_photo

সরকারের সমালোচনা মুছে দিচ্ছে ফেসবুক

বিভিন্ন দেশের সরকারের চাপে ফেসবুক সাইট থেকে ক্ষমতাসীনদের সমালোচনা বা বিতর্কিত স্ট্যাটাস মুছে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে সামাজিক মাধ্যমটির বিরুদ্ধে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে দাবি দাওয়া আদায়ে আন্দোলনরত কর্মীরা তাদের পোস্ট মুছে দেয়ার অভিযোগ করেছেন ফেসবুকের বিরুদ্ধে।

এবার রুমানিয়ায় দুর্নীতি বিরোধী সমাবেশের আগে আন্দোলনকর্মীরা ফেসবুক থেকে তাদের পোস্ট মুছে দেয়ার অভিযোগ মুছে দেয়ার অভিযোগ করলেন।এর আগে, গত সেপ্টেম্বর মাসে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার প্রতিবাদে দেয়া বিভিন্ন ফেসবুক পোস্ট ডিলিট করে দেয়ার অভিযোগ করেছিলেন আন্দোলন কর্মীরা।

রুমানিয়াতে ১০০-এরও বেশি সাংবাদিক, আন্দোলন কর্মী, ও সংগঠকের একাউন্ট হয় ব্লক করে দেয়া হয়েছে।সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার অনেকেই দাবি করেছেন ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার সময় তাদেরকে অনেক রকম বিধিনিষেধের সম্মুখীন হতে হচ্ছে।রুমানিয়ার ক্ষমতাসীন সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (পিএসডি)-এর বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ করছে দেশটির মানুষ।

সম্প্রতি পিএসডি একটি আইন প্রণয়ন করতে চাইছে। সমালোচকরা বলছেন নতুন আইনটি পাশ হলে রুমানিয়ায় বহুদিন ধরে চলে আসা দুর্নীতি নির্মূল করা কঠিন হয়ে পড়বে।

রুমানিয়ায় দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনের কর্মী ও ফেসবুকে আন্দোলনের প্রধান পেইজটির প্রতিষ্ঠাতা ফ্লোরিন বাদিতা ম্যাশেব্‌ল নিউজ সাইটকে ফেসবুকের সেন্সরশিপের শিকার ব্যক্তিদের একটি তালিকা দিয়েছেন। যেসব ব্যক্তি তাদের একাউন্ট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ও যাদেরকে ফেসবুকে পোস্ট দিতে বাধা দেয়া হচ্ছে বলে দাবি করছেন তাদের নাম রয়েছে ওই তালিকায়।১০১ বছর বয়সী দার্শনিক মিহাই সোরা-এর নাম রয়েছে ফ্লোরিনের দেয়া তালিকায় ।

মিহাই সোরা জানান, তার ফেসবুক পোস্টকে স্প্যাম হিসেবে চিহ্নিত করে ব্লক করে দেয়া হয়েছিল। ব্লক করে দেয়া হয়েছিল তার একাউন্ট। একাউন্ট পুনরুদ্ধারে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় তাকে। শেষ পর্যন্ত তার পরিচয়পত্রের একটি কপি পাঠানোর পর সোরা-এর একাউন্টটি আনলক করে ফেসবুক।

বাদিতা জানান, সেখানে তারা কোনো পোস্ট দিতে গেলেই তাদের ফেসবুক পেজে এই মেসেজটি ভেসে উঠছিলঃ “আমরা এই পোস্টটি মুছে দিচ্ছি, কারণ আমাদের কাছে এটি স্প্যাম মনে হচ্ছে এবং এটি কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড মেনে দেয়া হয়নি।”গত সোমবার ম্যাশেব্‌ল ফেসবুকের কাছে এ বিষয়ে মন্তব্য চাইলে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানায়, “যান্ত্রিক ত্রুটি”র কারনে আন্দোলন কর্মীদের পোস্টগুলো ব্লক করা হচ্ছিল এবং সে ত্রুটিগুলো সারিয়ে ফেলা হয়েছে। তবে রুমানিয়ার আন্দোলন কর্মীরা ফেসবুকের বক্তব্য সহজভাবে নিতে নারাজ।

তারা মনে করেন, সরকারের ভাড়া করা হ্যাকার ও ট্রোল ফেসবুকের স্বয়ংক্রিয় রিপোর্টিং ফাংশন বা অভিযোগ ব্যব্যস্থাকে কাজে লাগিয়েছে। একটি পোস্টের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট সংখ্যক অভিযোগ করা হলে ফেসবুক স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওই পোস্টটি ব্লক করে দেয়। কতগুলো ফেসবুক একাউন্ট থেকে মিলিতভাবে তাদের উপর আক্রমণ চালানো হয়েছিল এবং ওই একাউন্টগুলো কোন জায়গা থেকে পরিচালিত হচ্ছিল তা জানার দাবি করেছে আন্দোলনকারীরা।

একই সাথে, ফেসবুকে আবার এধরনের আক্রমণ হলে ফেসবুক কী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে তাও জানতে চায় আন্দোলনকর্মীরা।ফ্লোরিন বাদিতা দাবি করেন, পৃথিবীর “৮০% মানুষের কাছে ব্যর্থ প্রতিপন্ন হয়েছে ফেসবুক। ইংরেজি ভাষাভাষীদের জন্য তারা অনেক যত্নবান। কিন্তু অন্য ভাষায় ভুয়া একাউন্ট ও ঘৃণা ছড়ানোর জন্য দেয়া পোস্ট চেনার ক্ষেত্রে নেহাতই বাজে কাজ করছে ফেসবুক।”

poriborton

Check Also

khaleda_mirja_tareq

যে কারণে ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না বিএনপি

টানা ১৫ বছর ক্ষমতার বাইরে বিএনপি। বিভিন্ন সময় ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে, আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Share
Pin